September 18, 2021

দৈনিক প্রথম কথা

বাংলাদেশের জাতীয় দৈনিক

পতিসরে বিশ্বকবির জন্মোৎসব

নওগাঁ প্রতিনিধি: আমাদের ছোট নদী চলে বাঁকে বাঁকে/ বৈশাখ মাসে তার হাঁটু জল থাকে। বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর নওগাঁর আত্রাই উপজেলার পতিসরে অবস্থিত তার কাছারি বাড়িতে বসে বাড়ির পাশ দিয়ে বয়ে যাওয়া আঁকাবাঁকা নাগর নদীকে নিয়েই লিখেছিলেন তার সেই বিখ্যাত ‘আমাদের ছোট নদী’ কবিতাটি। এছাড়াও বিশ্বকবির বিখ্যাত কবিতা ‘দুই বিঘা জমি’, সন্ধ্যা’সহ বেশ কিছু বিখ্যাত সাহিত্য রচনা করেছেন এই পতিসরের কাছারি বাড়িতে বসেই।

আগামী ২৫শে বৈশাখ শুক্রবার পতিসর কাছারি বাড়িতে বিশ্বকবির ১৫৪তম জন্মোৎসব সরকারিভাবে উদযাপন করা হবে। তাই এক বছর পর ফের ধুয়েমুছে প্রস্তুত করা হচ্ছে কাছারি বাড়িটি। সাজানো হচ্ছে বর্ণিল সাজে। প্রতি বছরের ন্যায় এবারেও এখানে আসবেন মন্ত্রী, এমপি, ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাসহ দেশ বরেন্য শিল্পী ও রবীন্দ্র ভক্তরা। কবিগুরুর কবিতা আবৃত্তি, গান আর নাচে উদযাপন করা হবে রবীঠাকুরের জন্মোৎসব। প্রায় এক বিঘা জমির উপর অবস্থিত কবিগুরুর এই কাছারি বাড়ি। এখানে সংরক্ষণ করা হয়েছে কবির ব্যবহ্নত বিভিন্ন আসবাবপত্র।

১৮৩০ খ্রিস্টাব্দে বিশ্বকবির পিতামহ দ্বারকানাথ ঠাকুর এই কালিগ্রাম পরগনা ক্রয় করে ঠাকুর পরিবারের জমিদারীর অংশে অন্তর্ভুক্ত করেন। এরপর বিশ্বকবি ১৮৯১ খ্রিস্টাব্দের ১৩ জানুয়ারি পতিসরের কাছারি বাড়িতে প্রথম আসেন তার জমিদারী দেখাশুনা ও খাজনা আদায় করতে। সে সময় এই পরগনা থেকে খাজনা আদায় হতো প্রায় ৫০,৪২০ টাকা। বিশ্বকবি নোবেল পুরস্কার পাওয়ার পর পুরস্কারের অর্থ থেকে ৭৫ হাজার টাকা তৎকালীন সময়ে এখানে অবস্থিত কৃষি ব্যাংক মারফত এই পরগনার প্রজাদের মাঝে বিলিয়ে দেয়ার জন্য পাঠিয়েছিলেন। প্রত্যন্ত পল্লী এলাকার প্রজাদের মাঝে শিক্ষার আলো পৌঁছে দেয়ার লক্ষ্যে কবি ১৯৩৭ খ্রিস্টাব্দে পতিসরে এসে ছেলে রথীন্দ্রনাথের নামে কালিগ্রাম রথীন্দ্রনাথ ইনস্টিটিউশন স্থাপন এবং এই প্রতিষ্ঠানের নামে ২শ বিঘা জমি দান করেন। সে বছরের ২৬ জুলাই কবি শেষবারের মতো এসেছিলেন তার পতিসরের কাছারি বাড়িতে।

কবির ছেলে রথীন্দ্রনাথ ঠাকুর ১৯৩৪ খ্রিস্টাব্দে এই এলাকার প্রজাদের জন্য সর্বপ্রথম কলের লাঙ্গল (ট্রাকটর) এনেছিলেন। পরবর্তী সময়ে তৎকালীন সরকার ১৯৫২ খ্রিস্টাব্দে এক অর্ডিন্যান্স বলে কালিগ্রাম পরগনার জমিদারি কেড়ে নিলে রথীন্দ্রনাথ ঠাকুর সস্ত্রীক পতিসরে যাতায়াত বন্ধ করে দেন। তৎকালীন রবীন্দ্র বিরোধী পাকিস্থান সরকার ১৯৪৭ হতে ১৯৭০ সাল পর্যন্ত এখানে কোনো অনুষ্ঠান করতে দেয়নি। এরপর দেশ স্বাধীন হওয়ার পর ১৯৭৮ সালে তৎকালীন তার ও টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী তাহের উদ্দিন ঠাকুর সর্বপ্রথম অতিথি হিসেবে এখানে এসেছিলেন। ১৯৯৪ খ্রিস্টাব্দে পতিসরের এই রবীন্দ্র কাছারি বাড়ি প্রত্নতত্ত্ব অধিদপ্তরের আওতায় নিয়ে আসা হয় এবং সরকারিভাবে প্রতিবছর এখানে বিশ্বকবির জন্মোৎসব উদযাপন করা হয়।

নওগাঁ শহর থেকে পতিসরের দুরত্ব ৩৬ কিলোমিটার এবং আত্রাই থেকে ৪৬ কিলোমিটার। নওগাঁ ও আত্রাই থেকে মাইক্রোবাস, বাস, সিএনজি অটোরিক্সা যোগে পতিসর যাওয়া যায়।

এবার পতিসরের কাছারি বাড়িতে কবির জন্মোৎসব উদযাপন অনুষ্ঠান উদ্বোধন করবেন পাট ও বস্ত্র মন্ত্রী মোহা. ইমাজ উদ্দিন প্রামানিক। নওগাঁ জেলা প্রশাসক মো. এনামুল হকের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রী অ্যাডভোকেট মোস্তাফিজুর রহমান। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন জাতীয় সংসদের হুইপ মো. শহীদুজ্জামান সরকার, মো. আব্দুল মালেক এমপি, সাধন কুমার মজুমদার এমপি, মো. ইসরাফিল আলম এমপি, মো. ছলিম উদ্দিন তরফদার এমপি, নওগাঁ পুলিশ সুপার মো. কাইয়ুমুজ্জামান খান।