December 6, 2021

দৈনিক প্রথম কথা

বাংলাদেশের জাতীয় দৈনিক

ক্রিমিনাল ডিটেকশনের আওতায় গুলশান-বারিধারা

নিজস্ব প্রতিবেদক : যানজট ও নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিশ্চিত করতে রাজধানীর গুলশান, বারিধারা ও নিকেতন এলাকায় ১০০টি সিসি ক্যামেরা লাগানো হয়েছে। এই ক্যামেরাগুলোর মাধ্যমে সার্বক্ষণিক নজরদারি ছাড়াও ফেস ডিটেকশন, ভেহিকেল ট্র্যাকিং, ট্রাফিক কন্ট্রোল, অটোনম্বর প্লেট ডিটেকশন ও ক্রিমিনাল ডিটেকশন করা যাবে।

বৃহস্পতিবার সকালে গুলশানের লেকশোর হোটেলে সিসি ক্যামেরা প্রকল্প উদ্বোধন করেন বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ। গুলশানের ল অ্যান্ড অর্ডার কো-অরডিনেশন কমিটি এসব সিসি ক্যামেরা বসিয়েছে। কমিটিতে গুলশান থানা পুলিশ ছাড়াও রয়েছে গুলশান, বারিধারা ও নিকেতন সোসাইটি।

এ প্রকল্পের আওতায় গুলশান জোনে ৭০০টি ক্যামেরা বসানো হবে বলেও জানিয়েছে আয়োজক প্রতিষ্ঠান। তবে এসব ক্যামেরা মনিটরিং করবে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি)।

ডিএমপি কমিশনার আছাদুজ্জামান মিয়া বলেন, ‘জননিরাপত্তায় নেয়া যেকোনো উদ্যোগের পাশে পুলিশ সহায়তা করবে। গুলশানের ল অ্যান্ড অর্ডার কো-অরডিনেশন কমিটি এসব সিসি ক্যামেরা বসালেও ক্যামেরাগুলো মনিটরিং করবে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ।”

অনুষ্ঠানে উপস্থিত হয়ে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের নবনির্বাচিত মেয়র আনিসুল হক বলেন, “আমরা এ ধরনের উদ্যোগকে স্বাগত জানাই। সিসি ক্যামেরা স্থাপনের মাধ্যমে নগরের যানজট ও নিরাপত্তা রক্ষা করা আমার নির্বাচনী ইশতেহারেও ছিল।’

পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজি) এ কে এম শহীদুল হক বলেন, “আমাদের মূল লক্ষ্য পুলিশ-জনগণের মধ্যে পার্টনারশিপ বজায় রাখা। এটি একটি যুগান্তকারী ও ঐতিহাসিক উদ্যোগ।”

র‌্যাবের মহাপরিচালক বেনজীর আহমেদ বলেন, “এ উদ্যোগের মাধ্যমে গুলশানের বাসিন্দারা অসম্ভবকে সম্ভব করলো।” অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে আরো উপস্থিত ছিলেন- স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল।