September 19, 2021

দৈনিক প্রথম কথা

বাংলাদেশের জাতীয় দৈনিক

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বঙ্গবন্ধুর অসমাপ্ত কাজ সমাপ্ত করার পথে রয়েছেন

নিজস্ব প্রতিবেদক: আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আওয়ামী লীগকে শুধু সংগঠিত ও ঐক্যবদ্ধই করেননি, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের অসমাপ্ত কাজকেও সমাপ্ত করার পথে রয়েছেন।
তারা বলেন, ‘আমরা যে বিশ্বাস নিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাতে আওয়ামী লীগের দায়িত্ব তুলে দিয়েছিলাম, সে অনুযায়ী তিনি নিষ্ঠার সাথে দলকে সুসংগঠিত করে দেশকে আন্তর্জাতিকভাবে প্রশংশিত করেছেন।’
নেতৃবৃন্দ আরো বলেন, এক সময় যারা দেশকে তলাবিহীন ঝুড়ি হিসেবে আখ্যায়িত করেছিল তারা দেশের অর্থনীতিকে মিরাকল আপ রাইজিং হিসেবে উল্লেখ করেছেন।
তারা আজ বিকেলে রাজধানীর কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৩৪তম স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে বাংলাদেশ ছাত্রলীগের উদ্যোগে আয়োজিত বিশাল এক ছাত্র সমাবেশে এ কথা বলেন।
ছাত্রলীগের সভাপতি এইচ এম বদিউজ্জামান সোহাগের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত ছাত্র সমাবেশে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন শিল্পমন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য আমির হোসেন আমু এমপি এবং বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন বাণিজ্য মন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য তোফায়েল আহমেদ এমপি।
সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক সিদ্দিকী নাজমুল আলমের পরিচালনায় সমাবেশে অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট জাহাঙ্গীর কবির নানক এমপি, ডা. দীপু মণি এমপি, সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেন, আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম এমপি, খালিদ মাহমুদ চৌধুরী এমপি, আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন এমপি, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিশেষ সহকারী মাহবুবুল হক শাকিল, আওয়ামী লীগের তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক এডভোকেট আফজাল হোসেন, শিল্প বিষয়ক সম্পাদক আব্দুস সাত্তার, আওয়ামী লীগের কার্য নির্বাহী কমিটির সদস্য এনামুল হক শামীম, আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় উপ-কমিটির সহ-সম্পাদক লিয়াকত শিকদার এবং নজরুল ইসলাম বাবু এমপি।
আমির হোসেন আমু বলেন, বিএনপি স্বাধীনতা বিরোধী শক্তি জামায়াতে ইসলামীর সহায়তায় গত বছরের ৫ জানুয়ারীর দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে বানচাল করে দেশে অরাজকতা তৈরির ষড়যন্ত্র ব্যর্থ হয়েছিল।
তিনি বলেন, বিএনপি-জামায়াতের সে ষড়যন্ত্র ব্যর্থ হলেও এ বছরের ৫ জানুয়ারী আবার তারা নতুন করে ষড়যন্ত্র শুরু করে। তারা ৯২ দিন হরতাল ও অবরোধের নামে দেশের নিরীহ মানুষকে পুড়িয়ে হত্যা করে এবং সরকারী সম্পদের ব্যাপক ক্ষতি সাধন করে। তবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সফল নেতৃত্বে কাছে তাদের সে ষড়যন্ত্র আবার ব্যর্থ হয়।
আওয়ামী লীগের নেতা বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এখন শুধু আওয়ামী লীগের নেত্রী নন। তিনি এখন যেমন দেশের অগ্রযাত্রার প্রতীক তেমনি অসাম্প্রদায়িকতা ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনার প্রতীক। সেজন্য তাকে ১৯ বার হত্যার চেষ্টা করেছে একাত্তর ও পঁচাত্তরের খুনীরা।
যে কোন অশুভ শক্তিকে প্রতিহত করার জন্য সদা প্রস্তুত থাকার জন্য ছাত্রলীগের নেতা কর্মীদের প্রতি তিনি আহবান জানান।
তোফায়েল আহমেদ বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আজ বিশ্বের সমাদৃত রাষ্ট্রনেতা। তার সফল নেতৃত্বের জন্যই ভারতের সাথে সীমান্ত চুক্তিসহ সকল দিপাক্ষিক সমস্যার সমাধান করা সম্ভব হচ্ছে।
তিনি বলেন, ১৯৭৪ সালের মুজিব-ইন্দিরার সীমান্ত চুক্তিকে যারা গোলামীর চুক্তি হিসেবে আখ্যায়িত করেছিল তারা এখন এ চুক্তির জন্য ভারতকে অভিনন্দন জানিয়েছে। এ চুক্তির জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে অভিনন্দন না জানানোর মধ্য দিয়ে তাদের রাজনৈতিক দেউলিয়াত্ব প্রমানিত হয়েছে।
সম্প্রতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের দৌহিত্রী রেজওয়ানা সিদ্দিক টিউলিপের যুক্তরাজ্যে হাউজ অব কমন্সের সদস্য নির্বাচিত হওয়ার কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, বিএনপি টিউলিপ যাতে নির্বাচিত হতে না পারে তার জন্য সকল ধরনের চেষ্টা করে ব্যর্থ হয়েছে। টিউলিপ যখন যুক্তরাজ্যের পার্লামেন্টে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন, তখন বিএনপি নেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার পুত্র তারেক রহমান সেদেশে ফেরারী আসামী হিসেবে অবস্থান করছেন।
সমাবেশ শেষে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।