September 28, 2021

দৈনিক প্রথম কথা

বাংলাদেশের জাতীয় দৈনিক

বিশ্ব স্বাস্থ্য সম্মেলনে মোহাম্মদ নাসিম : জলবায়ু পরিবর্তনের সমস্যা মোকাবেলায় স্বাস্থ্য খাতকে প্রাধান্য দিয়ে কৌশল প্রণয়ন করতে হবে

নিজস্ব প্রতিবেদক : স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম বলেছেন, বিশ্বব্যাপী জলবায়ু পরিবর্তনের সমস্যা মোকাবেলায় স্বাস্থ্যখাতকে প্রাধান্য দিয়ে কৌশল প্রণয়নে সকলকে কার্যকর ভূমিকা রাখতে হবে।
এলক্ষ্যে তিনি আগামী ডিসেম্বরে প্যারিসে অনুষ্ঠেয় প্যারিস জলবায়ু চুক্তিতে এখাতে আর্থিক ও প্রযুক্তিগত সহায়তা বাড়ানোর ওপর গুরুত্ব দিতে বিশ্ব নেতৃবৃন্দের প্রতি আহ্বান জানান।
স্বাস্থ্যমন্ত্রী আজ বুধবার সুইজারল্যান্ডের জেনেভায় বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার ৬৮তম সম্মেলনে ‘জলবায়ু ও স্বাস্থ্য’ শীর্ষক এক টেকনিক্যাল ব্রিফিং-এ বক্তৃতাকালে মোহাম্মদ নাসিম এই আহ্বান জানান। জেনেভার জাতিসংঘ ভবনে এই সভা অনুষ্ঠিত হয়। আজ এখানে প্রাপ্ত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ কথা জানানো হয়।
মোহাম্মদ নাসিম বলেন, জলবায়ু পরিবর্তনে বাংলাদেশ সর্বোচ্চ ক্ষতির শিকারের সম্মুখীন একটি দেশ। বৈশ্বিক জলবায়ু ঝুঁকি সূচকেও বাংলাদেশকে সর্বোচ্চ ঝুঁকিপূর্ণ দেশ হিসাবে উল্লেখ করা হয়েছে।
তিনি বলেন, যদিও বিশ্বব্যাপী জলবায়ু পরিবর্তনে বাংলাদেশসহ অনেক অনুন্নত দেশের কোনো ভূমিকাই নেই। ইতোমধ্যে সব রকমের চরমভাবাপন্ন আবহাওয়ার প্রভাব বাংলাদেশে পড়তে শুরু করেছে। বর্ষা মৌসুমে কম বৃষ্টি, শীতকালে শীত না পড়া, গ্রীষ্মকালে ভয়াবহ তাপমাত্রা বৃদ্ধির মতো আবহাওয়ার অনিয়মিত ও অস্বাভাবিক প্রকৃতি বাংলাদেশকে মোকাবেলা করতে হচ্ছে। ফলে, নদী ও জলাশয় শুকিয়ে যাচ্ছে যা জমির উর্বরতা কমিয়ে দিচ্ছে। পাশাপাশি বিভিন্ন নতুন রোগের প্রাদুর্ভাব ঘটাচ্ছে।
স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, জলবায়ুর অস্বাভাবিক পরিবর্তনের ফলে এই শতাব্দীর মধ্যে সমুদ্রপৃষ্ঠ এক মিটার বৃদ্ধি পেয়ে বাংলাদেশের ১৭ শতাংশ জমি তলিয়ে যাবে এবং জনসংখ্যার ঘনত্ব বর্তমানে ১ হাজার ১০০ থেকে বেড়ে ১ হাজার ৭৩৫ হয়ে যাবে বলে আশংকা করা হচ্ছে। ফলে পৃথিবীর বৃহত্তম ম্যানাগ্রোভ বন সুন্দরবন সম্পূর্ণ বিনষ্ট হবে। ৮ মিলিয়ন ঘরবাড়িসহ বিপুল পরিমান রাস্তাঘাট, শিল্প কারখানা, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও হাসপাতাল পানিতে তলিয়ে যাবে।
স্বাস্থ্যমন্ত্রী বাংলাদেশে জলবায়ু পরিবর্তন সমস্যা মোকাবিলায় উপকূলীয় সতর্কতা এবং জনগণকে নিরাপদে অন্যত্র সরিয়ে নেওয়ার জন্য উন্নত ব্যবস্থাপনা প্রণয়ন, জলবায়ু ট্রাস্ট তহবিল গঠনসহ গৃহীত বিভিন্ন উদ্যোগের কথা তুলে ধরে বলেন, ইতোমধ্যে বাংলাদেশ এ সমস্যা এবং এ থেকে সৃষ্ট বিভিন্ন রোগ মোকাবেলায় নানামূখী উদ্যোগ গ্রহণ করেছে। বিশ্বব্যাপী সচেতনতা বাড়ানোর জন্য বলিষ্ঠ কণ্ঠস্বর হিসাবে প্রশংসিত বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার গতিশীল নেতৃত্বে বাংলাদেশ সাম্প্রতিক সময়ে বেশ কয়েকটি প্রাকৃতিক ও মানবসৃষ্ট দুর্যোগ সফলভাবে মোকাবিলা করেছে।
তিনি বলেন, দেশের দুর্যোগ প্রতিরোধ ও ব্যবস্থাপনা ক্ষমতা আরো বাড়াতে প্রযুক্তি, সম্পদ ও জনবলের আরো প্রয়োজন যা স্বাস্থ্য সেবার গুণগত মান ও ভৌত অবকাঠামো সম্প্রসারণে ভূমিকা রাখবে। তবে এজন্য প্রচুর অর্থের প্রয়োজন। তিনি এক্ষেত্রে প্রয়োজনীয় আর্থিক সহায়তা বাড়াতে বিশ্ব নেতৃবৃন্দের প্রতি আহ্বান জানান।
এদিকে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিউএইচও) দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া অঞ্চলের পরিচালক পুনম ক্ষেত্রপালের সঙ্গে বৈঠক করেন বাংলাদেশের স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম।
এ সময় মোহাম্মদ নাসিম বাংলাদেশের স্বাস্থ্য সেবা এগিয়ে নিতে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার আরো সহযোগিতা কামনা করে বলেন, সাড়ে ১৩ হাজার কমিউনিটি হেলথ ক্লিনিকের মাধ্যমে গ্রামঞ্চলে জনগণের দোরগোড়ায় স্বাস্থ্য সেবা পৌঁছে দেয়া হচ্ছে। এসব কমিউনিটি হেলথ ক্লিনিক থেকে মানুষ বিনামূল্যে চিকিৎসা ও ওষুধ পাচ্ছেন। তিনি বলেন, স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের নিরলস প্রচেষ্টা এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিচক্ষণ সাহসী নেতৃত্বের কারণে বাংলাদেশ শিশু ও মাতৃ মৃত্যু হার হ্রাস করতে সক্ষম হয়েছে।