January 29, 2022

দৈনিক প্রথম কথা

বাংলাদেশের জাতীয় দৈনিক

‘সুন্দরী কুমারীদের’ নিলামে তুলছে আইএস!

বিদেশ ডেস্ক : নির্বিচারে গণহত্যা, শিরোশ্ছেদ, পুরাকীর্তি ধ্বংসের মতো কর্মকাণ্ড হামেশাই চালিয়ে যাচ্ছে ইসলামি জঙ্গি সংগঠন আইএসের সদস্যরা। শুধু এতেই ক্ষান্ত নয়, তাদের শিকার হচ্ছে সুন্দরী কুমারীরাও। এদের ধরে নিয়ে নিলামে তুলছে তারা। এরপর চলছে যৌন নির্যাতন।

আইএসের দখলে থাকা সিরিয়া ও ইরাকের উদ্বাস্তু শিবির পরিদর্শন করে সম্প্রতি এমন ভয়াবহ অভিজ্ঞতার শিকার তরুণীদের কথা তুলে ধরেছেন সংঘাতময় এলাকায় যৌন সহিংসতা বিষয়ক জাতিসংঘের বিশেষ প্রতিনিধি জয়নব বনগুরা।

রোববার ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম ইন্ডিপেনডেন্টে এ খবর প্রকাশ করা হয়েছে।

প্রতিবেদনে জানানো হয়, যৌন সহিংসতাকে প্রাতিষ্ঠানিক রূপ দিয়েছে আইএস। তরুণীদের তারা আস্তানায় ধরে নিয়ে দাসী হিসেবে ব্যবহার করছে। তাদের ওপর চালাচ্ছে পাশবিক যৌন নির্যাতন।

আইএসের যৌন নির্যাতনের শিকার তরুণী ও তাদের পরিবারের বরাত দিয়ে জাতিসংঘের এই প্রতিনিধি জানিয়েছেন, অসংখ্য তরুণীদের ধরে নিয়ে যায় আইএস। এরপর অস্ত্রের মুখে তাদের কুমারিত্ব পরীক্ষা করে। কোনো তরুণীকে ‘সুন্দরী কুমারী’ মনে হলে তাকে তোলে নিলামে। এভাবেই তাদের মধ্যে তরুণীদের নিয়ে চলে কেনাবেচা। পরে তাদের উপর চলে অমানবিক যৌন নির্যাতন। আর এ কাজে কোনো তরুণী অস্বীকৃতি জানালে তাকে হত্যা করা হয় নির্মমভাবে।

তিনি আরও জানান, আইএস জঙ্গিরা কোনো গ্রামে হামলা চালানোর পর স্বামীদের কাছ থেকে স্ত্রী ও তাদের ছেলেমেয়েদের ছিনিয়ে নেয়। ছেলেদের হত্যা করার পর মেয়েদের উলঙ্গ করে কুমারিত্ব পরীক্ষা করে। এসময় তারা ওইসব মেয়ের স্তনের আকার এবং চেহারার লাবণ্য নির্ণয় করে। আর অল্প বয়সী কুমারি মেয়ে সবচেয়ে আকর্ষণীয় বলে বিবেচিত হয় নিলামে তাদের দাম হয় চড়া। নিলাম শেষে তাদেরকে পাঠিয়ে দেওয়া হয় আইএসের শক্ত ঘাঁটি রাকায়।

বনগুরা জানান, কোনো কোনো জায়গায় ১ হাজার থেকে ৫ হাজার তরুণী আইএসের হাতে জিম্মি রয়েছে। কোনো কোনো ক্ষেত্রে একই তরুণী টানা ২০-২২ বার ধর্ষণের শিকার হয়েছে। এমনকি কোনো তরুণী যৌনকাজ করতে অসম্মতি জানালে তাকে পুড়িয়ে মারা হয়।