September 17, 2021

দৈনিক প্রথম কথা

বাংলাদেশের জাতীয় দৈনিক

পাথর ছুঁড়লেই ১০ বছরের জেল

বিদেশ ডেস্ক : আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের লক্ষ্য করে পাথর ছুঁড়ে মারলেই ১০ বছরের জেল দেওয়ার বিধান রেখে এক বিলের অনুমোদন দিয়েছে ইসরায়েলী মন্ত্রিসভা। বিলের প্রস্তাবনা অনুযায়ী, ছুঁড়ে মারা পাথরে কেউ হতাহত না হলেও কারাদণ্ড দেওয়া হবে। খবর আলজাজিরার।

আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের লক্ষ্য করে ইট-পাথর ছুঁড়ে মারার দায়ে ২০ বছরের কারাদণ্ডের বিধান রেখে ইসরায়েলের সংসদে গত বছর আইন পাসের প্রাথমিক অনুমোদন দেওয়া হয়। ওই আইন অনুযায়ী, আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা শারীরিকভাবে আহত হলে এ কারাদণ্ড দেওয়া হবে।

চলতি বছর নেতানিয়াহু সরকার চতুর্থবারের মতো ক্ষমতায় এলে নতুন বিচারমন্ত্রী আয়েলেত শাকেদ ইট-পাথর ছুঁড়ে মারলেই শাস্তির বিধান রেখে এক প্রস্তাবনা উত্থাপন করেন। দেশটির মন্ত্রিসভায় এ বিলটি অনুমোদিত হয়েছে বলে গত রবিবার এক টুইট বার্তায় জানিয়েছেন শাকেদ।

ওই বিল অনুযায়ী, ছুঁড়ে মারা পাথরে কেউ হতাহত হয়েছে কি না— বিষয়টি প্রমাণ করা ছাড়াই পাথর নিক্ষেপকারীকে ১০ বছরের কারাদণ্ড দেওয়া যাবে।

বিভিন্ন সময় ইসরায়েলী বাহিনীর বর্বরতার জবাবে বিক্ষোভ চলাকালীন আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের লক্ষ্য করে ইট-পাথর ছুঁড়ে থাকে ফিলিস্তিনীরা। মূলত, বিক্ষোভকারী ওই ফিলিস্তিনীদের কঠোর শাস্তি দিতেই এ আইন করতে যাচ্ছে ইসরায়েল সরকার— এমনটিই মনে করছে ফিলিস্তিন কর্তৃপক্ষ।

ওয়াশিংটনস্থ পিএলও’র (প্যালেস্টাইন লিবারেশন অর্গানাইজেশন) প্রধান আলোচক মইন রশিদ বলেন, ‘ফিলিস্তিনী ও ইসরায়েলীর ক্ষেত্রে ইসরায়েল সরকার দুই ধরনের বিচারিক ব্যবস্থা চালু করেছে। একটি ইসরায়েলের নাগরিকদের জন্য, অন্যটি ফিলিস্তিনীদের জন্য।’

তিনি বলেন, ‘আমি মনে করি এটা (বিল) ইসরায়েলীদের ওপর কোনো প্রভাব ফেলবে না। কারণ এটার শর্তাবলী শুধু ফিলিস্তিনীদের জন্যই প্রযোজ্য। এটা ফিলিস্তিনীদের প্রতি বর্ণবাদমূলক আচরণ।’

ইসরায়েলী মন্ত্রিসভায় অনুমোদিত ওই বিলটি আইনে পরিণত করতে হলে দেশটির সংসদে তা পাস করতে হবে।

দেশটিতে বর্তমানে ছোড়া পাথরে মারাত্মক আহত না হলে নিক্ষেপকারীকে সর্বোচ্চ তিন মাসের কারাদণ্ড দিয়ে থাকেন বিচারকরা।