October 23, 2021

দৈনিক প্রথম কথা

বাংলাদেশের জাতীয় দৈনিক

নটরডেম, হলিক্রস, সেন্ট জোসেফ কলেজ ভর্তি পরীক্ষা নিতে পারবে

আদালত প্রতিবেদক : নটরডেম, হলিক্রস ও সেন্ট জোসেফ কলেজে এইচএসসিতে ফলাফলের ভিত্তিতে ভর্তির নিয়ম স্থগিত করেছেন হাইকোর্ট। একই সঙ্গে এই তিন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে পরীক্ষার মাধ্যমে এইচএসসিতে ভর্তির ক্ষেত্রে কোনো বাধা নেই বলেও আদেশ দেয়া হয়েছে।

এক রিট আবেদনের প্রাথমিক শুনানি শেষে সোমবার বিচারপতি নাইমা হায়দার ও বিচারপতি মো. ইকবাল কবির লিটনের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্টের অবকাশকালীন বেঞ্চ এ আদেশ দেন।

২০১৫-২০১৬ শিক্ষাবর্ষে একাদশ শ্রেনীতে ভর্তি নীতিমালা-২০১৫ এর অধীনে মেধা তালিকার ভিত্তিতে ভর্তির বিষয়ে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সার্কুলার তিন কলেজের জন্য ছয় মাসের স্থগিতাদেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। ফলে নিজস্ব নীতিতে ভর্তি পরীক্ষা নিয়ে ছাত্র-ছাত্রী ভর্তি নিতে পারবেন তারা।

একই সঙ্গে তিন কলেজের ক্ষেত্রে ভর্তি নীতিমালার ৬টি ধারাকে কেন বে- আইনী ঘোষণা করা হবে না তা জানতে চেয়ে রুলও জারি করেছে আদালত।

আগামী চার সপ্তাহের মধ্যে শিক্ষা সচিব, ঢাকা বোর্ডের চেয়ারম্যান ও কলেজ পরিদর্শককে রুলের জবাব দিতে বলা হয়েছে।

আদালতে রিট আবেদনের পক্ষে শুনানি করেন জ্যেষ্ঠ আইনজীবী ফিদা এম কামাল। সঙ্গে ছিলেন ব্যারিস্টার তানিম হাসান শাওন। অপরদিকে রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন, ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল কাজী জিনাত হক।

গত ১ জুন সারাদেশে উচ্চ মাধ্যমিক ভর্তির ক্ষেত্রে মেধাতালিকা অনুসারে ভর্তির জন্য একটি নীতিমালা জারি করে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। এই নীতিমালার ৩.১, ৪.১, ৪.২, ৫.৩, ৯.১ ও ৯.৩ ধারার বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে হাইকোর্টে রিট করে তিন কলেজের অধ্যক্ষরা। তারা হলেন, হলিক্রস কলেজের অধ্যক্ষ সিস্টার শিখা এল গোমেজ, নটরডেম কলেজের অধ্যক্ষ ফাদার হেমন্ত পিয়াস রোজারিও এবং সেন্ট জোসেফ কলেজের অধ্যক্ষ ব্রাদার রবি ফিউরিফিকেশন।

নীতিমালার ৩.১ ধারায় বলা হয়েছে, ভর্তির জন্য কোনো বাছাই বা ভর্তি পরীক্ষা গ্রহণ করা হবে না। কেবল শিক্ষার্থীদের এসএসসি বা সমমানের পরীক্ষার ফলের ভিত্তিতে ভর্তি করা হবে।

৪.১ ধারায় সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে অনলাইন অথবা টেলিটক এসএমএস এর মাধ্যমে আবেদন করতে হবে। ৪.২ আবেদন ফি ১৫০, সর্বোচ্চ ৫ কলেজে পছন্দক্রম দিতে পারবে। অনলঅইনে একবার আবেদন করতে পারবে। প্রতি কলেজের জন্য ১২০ টাকা।

৫.৩ এসএমএস প্রাপ্তির পর মেধাক্রম অনুসারে কলেজের নোটিশ বোর্ড বা ওয়েবসাইটে প্রকাশ করতে হবে। কোনো কারণে আসন শুন্য হলে বোর্ডের পছন্দ অনুসারে ২য় মেধাক্রম প্রকাশ করতে হবে।

৯.১ সকল কলেজে ভর্তির ক্ষেত্রে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের নীতিমালা প্রযোজ্য হবে। ৯.৩ -এ নীতিমালা না মানলে বিধি মোতাবেক ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে উল্লেখ করা হয়েছে।