September 28, 2021

দৈনিক প্রথম কথা

বাংলাদেশের জাতীয় দৈনিক

সহসা চালু হচ্ছে না বাংলাদেশ-ভারত নতুন রুটে বাস সার্ভিস

কুটনৈতিক প্রতিবেদক : বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে সদ্য চুক্তি হওয়া নতুন রুটে বাস সার্ভিস সহসা চালুর সম্ভাবনা নেই। নতুন রুটের বাস চলাচল সেবা পেতে দুই দেশের জনগণকে কমপক্ষে আরও ৩ মাস অপেক্ষা করতে হতে পারে।

অবকাঠামো উন্নয়ন, মানসম্পন্ন পরিবহন, নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিশ্চিতসহ নানা প্রস্তুতি সম্পন্ন করতে এ সময় লাগবে।

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির ঢাকা সফরে দুই দেশের মধ্যে কলকাতা-ঢাকা-আগরতলা ও ঢাকা-শিলং-গোহাটি নতুন এই রুটে বাস চলাচল সেবা গত ৬ জুন উদ্বোধন করা হয়। বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, ঢাকা সফররত ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ও পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় আনুষ্ঠানিকভাবে হাত নেড়ে দুই দেশের মধ্যে নতুন রুটে বাস চলাচল সেবা উদ্বোধন করেন।

বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্পোরেশনের চেয়ারম্যান মো. মিজানুর রহমান বলেন, ‘দুই দেশের মধ্যে নতুন রুটে উদ্বোধন হওয়া বাস চলাচল সেবা কবে থেকে চালু হবে তা এখনই বলা যাচ্ছে না। নতুন রুটে বাস চলাচল সেবার বিষয়টি দুই দেশই অনুমোদন করেছে এবং উদ্বোধনও করেছে। কিন্তু বাণিজ্যিকভাবে এই সেবা চালু করতে হলে যে সব প্রস্তুতির বিষয় রয়েছে তা এখনো শেষ হয়নি।’

মো. মিজানুর রহমান বলেন, ‘এই সেবা চালু করতে খুব শীঘ্রই দুই দেশের সংশ্লিষ্টদের মধ্যে বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে। অবকাঠামো উন্নয়ন, ভিসা সমস্যা, টিকিটের মূল্যসহ অনেক বিষয়েই এখনো সিদ্ধান্ত হয়নি। এগুলো ঠিক না হলে নতুন রুটের বাস চলাচল সেবা চালু করা সম্ভব না।’

একাধিক সূত্রে জানা গেছে, দুই দেশের মধ্যে নতুন রুটে বাণিজ্যিকভাবে বাস চলাচল সেবা চালু করতে ভিসা, টিকেটের মূল্য, বাস কাউন্টার, রুটের মধ্যবর্তী স্থানে বাস স্টপেজের অবকাঠামো উন্নয়ন, নিরাপত্তাসহ একাধিক বিষয়ের কাজ এখনো শেষ হয়নি। আবার নতুন রুটের চলাচল উপযোগী বাসও ঠিক করা হয়নি।

কলকাতা-ঢাকা-আগরতলা এই রুটে চলাচলের জন্য বাংলাদেশের উপযুক্ত বাস রয়েছে। কিন্তু ভারতের নেই। উদ্বোধনের সময় ভারত এই রুটে যে বাসটি ব্যবহার করেছে, ওই ধরনের বাস এমন দীর্ঘ রুটের জন্য শতভাগ ফিট না।

ঢাকা-শিলং-গোহাটি রুটের সেবা পেতে হলে ভারতের গ্রাহককে কলকাতা থেকে বাংলাদেশের ভিসা নিয়ে এই রুটের সেবা পেতে হবে। কেননা শিলং বা গোহাটিতে বাংলাদেশের কোনো কনস্যুলার সার্ভিস বা ভিসা সেবা কেন্দ্র নেই। শিলং-গোহাটি রুটটি পার্বত্য অঞ্চল ও ওই অঞ্চলে আসামের বিচ্ছিন্নতাবাদী সংগঠনের তৎপরতা থাকায় নিরাপত্তার সমস্যা রয়েছে। এ ছাড়া ভারত অংশের এই রুটের সড়ক সরু। এক্ষেত্রে সড়ক সংস্কার করতে হবে অথবা বিশেষ বাস সেবা দিতে হবে।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের একটি সূত্র জানিয়েছে, শিলং-এ বাংলাদেশের ভিসা সেবা কেন্দ্র খোলার বিষয়ে সিদ্ধান্ত হয়েছে। অচিরেই তা বাস্তবায়ন করা হবে। শিলং ও গোহাটিতে নিরাপত্তা নিয়ে কোনো সমস্যা হবে না, ভারত এই বিষয়ে নিশ্চয়তা দিয়েছে। আর ওই রুটের সড়ক সংস্কারের কাজও ভারত দ্রুত শেষ করবে বলে ঢাকাকে জানিয়েছে।

বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্পোরেশনের চেয়ারম্যান মো. মিজানুর রহমান বলেন, ‘নতুন সেবা পেতে ভারতের চাহিদা অনেক বেশী। কিন্তু ভিসা জটিলতা সহজ না হলে এই সেবা চালু রাখা কঠিন হবে। আমরা এরই মধ্যে অন এ্যারাইভাল ভিসার জন্য পরামর্শ দিয়েছি। সামনের বৈঠকগুলোতে এই বিষয়ে সিদ্ধান্ত হবে।’