June 22, 2021

দৈনিক প্রথম কথা

বাংলাদেশের জাতীয় দৈনিক

শাস্তি পেলেন ধোনি, মুস্তাফিজও

ক্রীড়া প্রতিবেদক : মুস্তাফিজুর রহমানকে মহেন্দ্র সিং ধোনির ধাক্কার ঘটনায় হইচই পড়ে গিয়েছে ক্রিকেট দুনিয়ায়। কাল থেকেই প্রশ্নটা আসছিল, কী শাস্তি পেতে যাচ্ছেন ভারতীয় অধিনায়ক? এমনও শোনা যাচ্ছিল, এক-দুই ম্যাচ নিষিদ্ধও হতে পারেন। আপাতত বড় ধরনের কোনো শাস্তি পেতে হয়নি। ম্যাচ ফি কাটার মধ্যেও সীমাবদ্ধ থেকেছে। ধোনির সঙ্গে শাস্তি পেয়েছেন মুস্তাফিজও।
ম্যাচের পরই দুজনের বিরুদ্ধে রিপোর্ট করেন মাঠের আম্পায়াররা। শুনানির পর দুজনকেই জরিমানা করেন ম্যাচ রেফারি পাইক্রফট। জরিমানা হিসেবে কেটে নেওয়া হয়েছে ধোনির ৭৫ শতাংশ আর মুস্তাফিজের ৫০ শতাংশ ম্যাচ ফি।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক ম্যাচ অফিশিয়াল প্রথম আলোকে জানিয়েছেন, ‘‘শুনানিতে নিজের দোষ স্বীকার করে নিয়েছে মুস্তাফিজ। বলেছে, আরেকটু সরে গেলে হয়তো ধাক্কাটা এড়ানো যেত। আচরণবি​ধির ভাষায় এটি ‘অ্যাভয়ডেবল’ ঘটনা। বোলার ওখানে দাঁড়িয়েছিল বলের জন্য। বল পাবে না জেনেও সে সরেনি। ওটা আসলে তার জায়গাও ছিল না। জায়গাটা ডানদিকে। এটা জেনে করে থাকুক বা না জেনেই করুক, অবশ্যই নিয়ম ভঙ্গ। নিয়ম বলছে, ‘কিছুতেই খেলোয়াড়েরা ধাক্কায় লিপ্ত হতে পারবে না।’ দুজনই একই লাইনে ছিল। ধোনির দোষ ছিল, দোষ হবে মুস্তাফিজেরও। যদি মুস্তাফিজ সরে দাঁড়াত এবং তার পরও ধোনি ধাক্কা দিত, তাহলে পুরো দোষ ধোনিরই হতো। তবে সব স্বীকার করে নেওয়ায় মুস্তাফিজকে ৫০ শতাংশ জরিমানা করা হয়েছে।’’
মুস্তাফিজ সহজেই স্বীকার করে নিলেও ধোনি নাকি কিছুতেই নিজের দোষ স্বীকার করে নিতে চাননি। দাবি করেছেন, তাঁর সরে যাওয়ার জায়গা ছিল না। ও প্রান্তে থাকা ব্যাটসম্যানকে দৌড়ানোর জায়গা করে দিতে ওই পাশ দিয়ে আসতে হয়েছে। ধোনি বলেছেন, ‘আমি তাকে (মুস্তাফিজ) হাত দিয়ে সরিয়ে দিতে চেয়েছিলাম।’ কিন্তু ভিডিও ফুটেজে স্পষ্ট দেখা গেছে, ইচ্ছে করে ধাক্কা দিয়েছেন মুস্তাফিজকে। এটি আইসিসির আচরণবিধির লেভেল ২.২.৪-এর অপরাধ।

প্রশ্ন উঠবে, ধোনির শাস্তি কি যথার্থ হলো? ম্যাচ অফিশিয়াল বললেন, ‘চাইলে ধোনির পুরো ম্যাচ ফি কাটা যেত। কিংবা এক ম্যাচ বা দুই ম্যাচ নিষিদ্ধও করা যেত। এটা নির্ভর করে ম্যাচ রেফারির ওপর। তবে শাস্তি দেওয়ার আগে ওই খেলোয়াড়ের আগের ম্যাচগুলোয় তার শৃঙ্খলার বিষয়টিও বিশ্লেষণ করা হয়। ধোনির ক্ষেত্রেও তা বিবেচনা করা হয়েছে। হয়তো আগের ম্যাচগুলোয় ভাবমূর্তি খুব ভালো থাকায় শাস্তিটা ৭৫ শতাংশেই সীমাবদ্ধ থেকেছে।’