September 17, 2021

দৈনিক প্রথম কথা

বাংলাদেশের জাতীয় দৈনিক

ঈদে ট্রেনের টিকিট বিক্রি শুরু ৯ জুলাই

ডেস্ক প্রতিবেদন :  ঈদে ঘরে ফেরা মানুষদের জন্য আগামী ৯ জুলাই থেকে ঢাকা ও চট্টগ্রামে ট্রেনের আগাম টিকিট বিক্রি শুরু হবে। এই টিকিট বিক্রি চলবে ১৩ জুলাই পর্যন্ত। আজ রোববার ঢাকার রেলভবনে এক সংবাদ সম্মেলনে এ কথা জানান রেলপথ মন্ত্রী মো. মুজিবুল হক। তিনি বলেন, টিকিট কালোবাজারি প্রতিরোধে বিশেষ ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। খবর বাসসের।

মন্ত্রী জানান, ১৩ জুলাই যাত্রার টিকিট ৯ জুলাই, ১৪ জুলাই যাত্রার টিকিট ১০ জুলাই, ১৫ জুলাই যাত্রার টিকিট ১১ জুলাই, ১৬ জুলাই যাত্রার টিকিট ১২ জুলাই এবং ১৭ জুলাই যাত্রার টিকিট ১৩ জুলাই বিক্রি করা হবে। একজন যাত্রী সর্বোচ্চ চারটি টিকিট কাটতে পারবেন। বিক্রীত টিকিট ফেরত নেওয়া হবে না। মন্ত্রী বলেন, অনলাইন ও মোবাইলেও টিকিট কেনা যাবে।

রেলমন্ত্রী মুজিবুল হক বলেন, আসন্ন পবিত্র ঈদুল ফিতর উপলক্ষে বাংলাদেশ রেলওয়েতে ২ লাখ ৫০ হাজার যাত্রী পরিবহনের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। তিনি বলেন, পবিত্র ঈদুল ফিতরের সময় যাত্রীদের যাতায়াতের শতভাগ সেবা প্রদান করা হবে। এ লক্ষ্যে রেলপথ মন্ত্রণালয় এবং বাংলাদেশ রেলওয়ে ব্যাপক কর্মসূচি গ্রহণ করেছে। কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে—পবিত্র ঈদুল ফিতর উপলক্ষে বিশেষ ট্রেন পরিচালনা, বিশেষ ব্যবস্থাপনায় ঈদের টিকিট বিক্রি, অতিরিক্ত কোচ সংযোজন, অতিরিক্ত ইঞ্জিন সরবরাহ, টিকিট কালোবাজারি প্রতিরোধ, দুর্ঘটনা মোকাবিলা এবং নাশকতা প্রতিরোধ।

মন্ত্রী বলেন, ঈদের তিন দিন আগে (১৯ জুলাই ঈদ ধরে) ১৫ থেকে ১৭ জুলাই এবং ঈদের পরে ৭ দিন ২০ থেকে ২৬ জুলাই এবং পবিত্র ঈদের দিন শোলাকিয়া স্পেশাল ট্রেন চালু করা হবে।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, ঈদের পরে রাজশাহী, খুলনা, রংপুর, দিনাজপুর ও লালমনিরহাট রেলস্টেশন থেকে বিশেষ ব্যবস্থাপনায় অগ্রিম টিকিট বিক্রি করা হবে। এ সব স্টেশন থেকে ২০ জুলাই যাত্রার টিকিট ১৬ জুলাই, ২১ জুলাই যাত্রার টিকিট ১৭ জুলাই, ২২ জুলাই যাত্রার টিকিট ১৮ জুলাই, ২৩ জুলাই যাত্রার টিকিট ১৯ জুলাই এবং ২৪ জুলাই যাত্রার টিকিট ২০ জুলাই বিক্রি করা হবে।

মন্ত্রী জানান, ঈদ উপল‌ক্ষেÿমোট ১৬৯টি যাত্রীবাহী কোচ বিভিন্ন ট্রেনে অতিরিক্ত সংযোজন করা হবে। এর মধ্যে রয়েছে ১০৯টি মিটার গেজ ও ৬০টি ব্রডগেজ যাত্রীবাহী কোচ। এ সব কোচ পাহাড়তলী ও সৈয়দপুর রেলওয়ে ওয়ার্কশপে মেরামত ও সংস্কার করা হচ্ছে। তিনি বলেন, কারখানায় মেরামত করে ২৫টি ইঞ্জিন ঈদের সময় সরবরাহ করা হবে।

মুজিবুল হক বলেন, টিকিট কালোবাজারি প্রতিরোধ করার জন্য সরকারের পক্ষ থেকে বিশেষ ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। ঢাকার কমলাপুর, ঢাকা সেনানিবাস, বিমানবন্দর, জয়দেবপুর, চট্টগ্রাম, ময়মনসিংহ, সিলেট, রাজশাহী ও খুলনাসহ সকল বড় রেলস্টেশনে জিআরপি, আরএনবি, স্থানীয় পুলিশ, বিজিবি এবং র‌্যাবের সহযোগিতায় টিকিট কালোবাজারি প্রতিরোধে সার্বক্ষণিক প্রহরার ব্যবস্থা করা হবে। এ ছাড়া জেলা প্রশাসকদের সহযোগিতায় ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করা হবে।

মন্ত্রী বলেন, আগামী ১৫ থেকে ১৭ জুলাই ঢাকা-দেওয়ানগঞ্জ-ঢাকা রুটে, ১৫ থেকে ১৭ চট্টগ্রাম-চাঁদপুর-চট্টগ্রাম রুটে, পার্বতীপুর-ঢাকা-পার্বতীপুর রুটে, খুলনা-ঢাকা-খুলনা রুটে স্পেশাল ট্রেন চলাচল করবে। এ ছাড়া পবিত্র ঈদের দিন ভৈরব-কিশোরগঞ্জ-ভৈরব এবং ময়মনসিংহ-কিশোরগঞ্জ-ময়মনসিংহ রুটে শোলাকিয়া স্পেশাল ট্রেন চলাচল করবে।