June 22, 2021

দৈনিক প্রথম কথা

বাংলাদেশের জাতীয় দৈনিক

গতি নেই রামপুরা ফ্লাইওভার নির্মাণে

নিজস্ব প্রতিবেদক : রাজধানীর রামপুরা ব্রিজের দুই পাশে ভয়াবহ জ্যাম কমাতে নির্মাণ করা হচ্ছে হাতিরঝিল প্রকল্প ফ্লাইওভার (সাউথ ইউলুপ)। ২০১৩ সালে কাজ শুরু হয়ে পরবর্তী দুই বছরের মধ্যে ফ্লাইওভারটির কাজ শেষ হওয়ার কথা থাকলেও এখনো খুঁড়িয়ে খুঁড়িয়ে চলছে এর কাজ। কবে নাগাদ কাজ শেষ হবে কেউ জানেনা।

সরেজমিন প্রকল্প এলাকা ঘুরে নির্মাণ কাজের এমন হাল দেখা গেল। ফলে, ভোগান্তি যেন এই পথে যাতায়াতকারীদের নিত্য দিনের সঙ্গী হয়ে দাঁড়িয়েছে। এই রুটে ১০ থেকে ১৫ মিনিটের পথ অতিক্রম করতে এখনো সময় লাগছে অন্তত ৪০ থেকে ৫০ মিনিট। ক্ষেত্র বিশেষে মেরুল বাড্ডা থাকে রামপুরা ব্রিজটি অতিক্রম করতে এক ঘণ্টা সময় অপেক্ষা করতে হচ্ছে।

সরেজমিন ঘুরে দেখা গেছে, রামপুরা ব্রিজের পাশেই নির্মাণাধীন এই ফ্লাইওভারটির কাজ এখনো শেষ হয়নি। অথচ চলতি বছরের শুরুতেই ফ্লাইওভারটির কাজ শেষ হওয়ার কথা ছিল। তবে এ বছরের মধ্যই কাজ শেষ করা হতে পারে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা।

ফ্লাইওভারটির কাজে নিয়োজিত একজন জানান, কবে নাগাদ ফ্লাইওভারটির কাজ শেষ হবে তা বলা যাচ্ছে না। সেনাবাহিনী কাজটির তত্ত্বাবধায়ন করছে তাই এর চেয়ে বেশি কিছু বলতে রাজি হননি তিনি।

এদিকে সেনাবাহিনীর তত্ত্বাবধানে নির্মিত এই ফ্লাইওভারটির কাজ আপাতত দিনে বন্ধ রাখা হয়েছে। দিনে রাস্তাটি প্রচণ্ড ব্যস্ত থাকায় বর্তমানে এর বেশিরভাগ কাজ রাত ১১টার পর করা হচ্ছে। এতে কিছুটা রেহাই পাচ্ছেন দিনে চলাচলকারী মানুষরা। বিশেষ করে অফিসগামীরা।

জানা গেছে, হাতিরঝিলের পূর্বপাশে অবস্থিত এই ফ্লাইওভারটিও সেনাবাহিনীর সহায়তায় নির্মাণ করা হচ্ছে। ফ্লাইওভারটি নির্মাণ করা হলে বনশ্রী থেকে ছেড়ে আসা যানবাহনগুলো রামপুরা ব্রিজের গোড়ায় ঘণ্টার পর ঘণ্টা অপেক্ষা না করে সরাসরি ফ্লাইওভার দিয়ে হাতিরঝিল হয়ে মগবাজার এবং উত্তর বাড্ডা হয়ে গুলশান, বনানী ও এয়ারপাের্টের দিকে যেতে পারবে।

এই প্রকল্পের দায়িত্বরত একজন প্রকৌশলী জানান, ফ্লাইওভারটির পূর্বপাশের বেশিরভাগ জায়গা বাংলাদেশ টেলিভিশন (বিটিভি’র)। বিটিভি একটি সরকারি প্রতিষ্ঠান। আর ফ্লাউওভারটিও সরকারি কাজ। তারপরও বিটিভির নিজেদের জায়গার উপর দিয়ে ফ্লাইওভারটির নির্মাণ করায় প্রথম অবস্থায় বাধার সম্মুখীন হতে হয়েছে।

এছাড়া ফ্লাইওভারটির নিচে ও তার চারপাশে বিদ্যুৎ, গ্যাস, ওয়াসার পানির লাইন ও টেলিফোন সংযোগ থাকায় নির্মাণ প্রক্রিয়া যথাসময়ে এগিয়ে নেয়া সম্ভব হয়নি। তবে বর্তমান সব কিছু ম্যানেজ করে ফ্লাইওভারের কাজ এগিয়ে চলছে। চলতি বছরের শেষ দিকে ফ্লাইওভারটির কাজ শেষ হতে পারে বলেও জানান তিনি।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে তিনি আরো জানান, হাতিরঝিল হয়ে আসা গাড়িগুলোকে যাতে ব্রিজের উত্তর পাশের সিগনালে অপেক্ষা করতে না হয় এজন্য বৌদ্ধ মন্দিরের সামনে থেকে আরেকটি ফ্লাইওভার নির্মাণ করার পরিকল্পনাও করা হচ্ছে।

প্রায় ৪শ’ মিটার দূরত্বের এই ফ্লাইওভারটির কাজ শেষ হলে আশার আলো দেখতে পাবেন এই রুটে চলাচলকারীরা। রাসেল আহমদ নামে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন ছাত্র ক্ষোভ প্রকাশ করে জাগো নিউজকে বলেন, রামপুরা ব্রিজের কাছে আসলে গাড়ির চাকা যেন বন্ধ হয়ে যায়। তবে জনস্বার্থের কথা বিবেচনা করে সেনাবাহিনী দ্রুত এই কাজ শেষ করবে বলেও আশাবাদ ব্যক্ত করেন রাসেল।