December 6, 2021

দৈনিক প্রথম কথা

বাংলাদেশের জাতীয় দৈনিক

প্রথমবারের মতো বিদেশে চাঁপাইয়ের আম

চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি : প্রথমবারের মতো বিদেশে রফতানি হচ্ছে চাঁপাইনবাবগঞ্জের আম। আর বাণিজ্যিকভাবে। ‘ফ্রুট ব্যাগিং’ পদ্ধতিতে উৎপাদিত এই আমের ক্রেতা বিশ্বের সবচেয়ে বড় খুচরা পণ্য বিক্রেতা প্রতিষ্ঠান ইংল্যান্ডের ওয়ালমার্ট ও বাংলা মার্কেট। বুধবার জেলা শহরের সোনার মোড় এলাকা থেকে লন্ডনের উদ্দেশ্যে  পরীক্ষামূলকভাবে ২ টন আম পাঠানো হয়।

আম উৎপাদনে বাংলাদেশ বিশ্বের অষ্টম স্থানে থাকলেও এই প্রথম প্রথম বিদেশে আম পাঠাতে পেরে উচ্ছ্বসিত চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার আম চাষি ও ব্যবসায়ীরা।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ আঞ্চলিক উদ্যানতত্ত্ব গবেষণা কেন্দ্রের ও এ প্রযুক্তির প্রধান গবেষক ড. মো. শরফ উদ্দিন জানান, ফ্রুট ব্যাগিং ব্যবহারের ফলে রফতানিযোগ্য আম উৎপাদন সম্ভব হয়েছে। এই পদ্ধতি ব্যবহারে আগামীতেও সাফল্য পাওয়া যাবে বলে তিনি দাবি করেন।

তিনি বলেন, গত দুবছর ধরে গবেষণা কেন্দ্রে প্রায় ১৮ জাতের আমের উপর চীনের ফ্রুট ব্যাগিং পদ্ধতি পরীক্ষায় সাফল্য পাওয়া গেছে। এবার তা আমচাষীদের জন্য বাণিজ্যিকভাবে উন্মুক্ত করে দেওয়া হয়। সাধারনত একটি আম গাছে বিভিন্ন ধরনের যে কীটনাশক স্প্রে করা হয়, তার খরচ থেকে এ পদ্ধতি অনেকাংশে সাশ্রয়ী।

এই পদ্ধতিতে মানসম্পন্ন নিরাপদ, শতভাগ রোগ ও পোকামুক্ত আম উৎপাদন সম্ভব। এ আম সংগ্রহের পর ১০-১৫ দিন পর্যন্ত তা সংরক্ষণ করে খাওয়া যায়। এই প্রযুক্তি চাষিদের কাছে পৌঁছানো সম্ভব হলে, কার্বাইড ও অন্যান্য হরমোন জাতীয় রাসায়নিক এবং ফরমালিনের মতো বিষাক্ত দ্রব্যের ব্যবহার সম্পুর্ণরূপে বন্ধ সম্ভব হবে।

এদিকে, এই ব্যাগের আমদানীকারক মো. রবিউল আলম জানান, এ বছর সব মিলিয়ে  মাত্র ৩ থেকে ৫ টাকা মূল্যের প্রায় ১ লাখ ৫০ হাজার আমে এ ব্যাগ ব্যবহার করা হয়েছে, যা থেকে প্রায় ১১০ মেট্রিকটন নিরাপদ ও রপ্তানীযোগ্য আম উৎপাদিত হবে বলে আশা করা যাচ্ছে।

অন্যদিকে, স্থানীয় পরিবেশক মের্সাস বারকুল্লাহ টের্ডাসের বাশিরুল ইসলাম জানান, ইংলান্ডের ওয়ালমার্ট এই প্রথমে তাদের কাছ থেকে ২ মেট্রিক টন আম নিচ্ছে।