September 30, 2022

দৈনিক প্রথম কথা

বাংলাদেশের জাতীয় দৈনিক

জাল টাকা প্রতিরোধে তৎপর কেন্দ্রীয় ব্যাংক

অর্থনৈতিক প্রতিবেদক: গত কয়েক বছর যাবৎ ঈদের আগে টাকা জালকারী চক্রগুলো সক্রিয় হয়ে ওঠায় এ বিষয়ে কঠোর হচ্ছে বাংলাদেশ ব্যাংক। জাল নোট প্রতিরোধে জনসচেতনতা বাড়ানো ও এর কারবারিদের প্রতিরোধে কঠোর অভিযান পরিচালনাসহ নজরদারি বাড়াতে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে নিয়ে কাজ করবে কেন্দ্রীয় ব্যাংক।

বাংলাদেশ ব্যাংক সূত্রে জানা গেছে, জাল নোট প্রতিরোধ কমিটিতে বাংলাদেশ ব্যাংক, আইন মন্ত্রণালয়, এনএসআই, ডিজিএফআই, বিজিবি, পুলিশ, র‌্যাব, সিআইডি, ডিবি, আদালত, সিকিউরিটিজ প্রিন্টিং প্রেস এর ১৫ জন সদস্য রয়েছেন।

এ কমিটির প্রধান বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্বাহী পরিচালক মো. আব্দুর রহিমের সভাপতিত্বে বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ ব্যাংকে জাল নোট প্রতিরোধে করণীয় নির্ধারণ বিষয়ক এক জরুরি বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। বাংলাদেশ ব্যাংকে অনুষ্ঠিত এই বৈঠকে ১০টি সিদ্ধান্ত গৃহীত হয় বলে জানা গেছে।

Taka Jaallবৈঠক সূত্রে জানা গেছে, আসল ব্যাংক নোটের নিরাপত্তা বৈশিষ্ট্য সংবলিত ভিডিওচিত্র পুরো রমজান মাসে গুরুত্বপূর্ণ জনসমাগমস্থলে এবং ব্যাংক শাখায় গ্রাহকদের জন্য প্রদর্শিত টিভি মনিটরে প্রচারসহ জাল নোট প্রতিরোধে বাংলাদেশ ব্যাংক কর্তৃক বিভিন্ন সময়ে ইস্যুকৃত পত্রের নির্দেশনাসমূহ যথাযথভাবে পরিপালন নিশ্চিত করতে তফসিলি ব্যাংকগুলোকে পরামর্শ দেওয়া হয়। তা ছাড়া, দেশের গুরুত্বপূর্ণ শপিং মলগুলোতে ব্যবহারের জন্য এফবিসিসিআইকে পর্যাপ্ত সংখ্যক জাল নোট শনাক্তকারী মেশিন প্রদান, গুরুত্বপূর্ণ জনসমাগমস্থলে আসল নোটের নিরাপত্তা বৈশিষ্ট্য সংবলিত হ্যান্ডবিল বিতরণ এবং টিভি চ্যানেলে এ সংক্রান্ত সংক্ষিপ্ত ভিডিওচিত্র প্রচারের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য মতে, এখন পর্যন্ত যেসব জাল টাকার ঘটনা ধরা পড়েছে, সেগুলো বেশির ভাগই ৫০০ ও ১০০০ টাকার নোট। ৫০ টাকা বা এর চেয়ে কম মানের নোটগুলো জাল হচ্ছে খুবই কম। তাই এসব নোটের নিরাপত্তা বৈশিষ্ট্য বিষয়ক পোস্টার জেলা প্রশাসকের কার্যালয়, ইউএনও অফিস, ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয়ের অফিসে নেট দিয়ে আবদ্ধ নোটিশ বোর্ডে টাঙানোর ব্যবস্থা করা হবে। সচেতনতা বাড়াতে রমজান মাস জুড়ে প্রতি সপ্তাহে আসল ব্যাংক নোটের নিরাপত্তা বৈশিষ্ট্য সংবলিত বিজ্ঞাপন অন্তত পাঁচটি পত্রিকায় প্রচার করা হবে।

এ প্রসঙ্গে কথা হয় কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নির্বাহী পরিচালক আবদুর রহিমের সঙ্গে। তিনি রাইজিংবিডিকে বলেন, ‘ঈদসহ সব বড় উৎসবের আগে নগদ টাকার লেনদেন বাড়ে। এ সময়ে নোট জালকারী চক্রগুলোও সক্রিয় হয়ে ওঠে। এ জন্য আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীসহ সংশ্লিষ্ট পক্ষগুলোর তৎপর থাকবে।’

তিনি আরো বলেন, ‘এবার ঈদে দেশের সব ব্যাংকে আসল নোটের নিরাপত্তা বৈশিষ্ট্য সংবলিত ভিডিও প্রচারের নির্দেশনা ও ব্যাংকিং কর্মদিবসে লেনদেনের সময় জাল নোট এড়াতে প্রশিক্ষিত জনবল দিয়ে নোট পরীক্ষাসহ বিভিন্ন পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।’

বাংলাদশে ব্যাংকের সবশেষে প্রতিবেদনে দেখা যায়, এখন পর্যন্ত সারা দেশে জাল নোটের বিষয়ে প্রায় সাড়ে ৫ হাজার মামলা হয়েছে। এর মধ্যে বিভিন্ন মানের মুদ্রা রয়েছে। এর বেশির ভাগই জাল নোটসহ গ্রেফতার। কিছু রয়েছে জাল নোট তৈরির সরঞ্জারসহ গ্রেফতার। ওই চক্রটির বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলাগুলো গুরুত্বের সঙ্গে নিয়ে তাদের শাস্তি নিশ্চিত করার ব্যবস্থা করতে কেন্দ্রীয় ব্যাংক থেকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে বলে জানা গেছে।

শুধু ঈদ নয়, সারা বছর জুড়ে বাংলাদেশ ব্যাংকসহ জাল নোট প্রতিরোধ কমিটিকে জোরদার হওয়ার পরামর্শ দিয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রাক্তন গর্ভনর সালেহউদ্দিন আহমেদ রাইজিংবিডিকে বলেন, ‘শুধু পুলিশি অভিযানে জাল টাকা রোধ সম্ভব নয়। জনসচেতনতা বৃদ্ধির পাশাপাশি জাল টাকার সঙ্গে জড়িতদের শাস্তি নিশ্চিত করতে হবে।’