October 7, 2022

দৈনিক প্রথম কথা

বাংলাদেশের জাতীয় দৈনিক

ঝড়ের অজুহাতে নিত্যপণ্যের বাজারে আগুন

অর্থনৈতিক প্রতিবেদক : ঘূর্ণিঝড় কোমেনের প্রভাবে দেশে বন্যা হতে পারে এ গুজবে ঢাকাসহ দেশের নিত্যপণ্য বাজার মূল্যে আগুন লেগেছে। সবজি ও পিঁয়াজসহ অন্যান্য পণ্যের দর হু হু করে বেড়ে গেছে।

কোমেনের প্রভাবে সারাদেশের কোথাও ভারি থেকে অতি ভারি বর্ষণ হচ্ছে। আপদ কাটাতে উপকূলীয় মানুষ আশ্রয় কেন্দ্রে অবস্থান নিলেও ঝড়টি দুর্বল হয়ে আসায় ইতোমধ্যে ঘরে ফেরার খবর পাওয়া গেছে। আবহাওয়া দপ্তর সূত্রে জানা গেছে, উপকূলে বিপদ সংকেত নামিয়ে সতর্কতা সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে। ঘূর্ণিঝড়টি দুর্বল হয়ে স্থল নিম্নচাপে পরিণত হয়েছে।

দেশের আবহাওয়ার এ অবস্থার সুযোগে নিত্যপণ্যের দোকানিরা দুএকদিন আগে ৪০ টাকা বিক্রি হওয়া প্রতিকেজি পিঁয়াজ মানভেদে বিক্রি হচ্ছে ৫৫ টাকা ৬৫ টাকায়। আমদানি রসুন প্রতিকেজি বিক্রি হচ্ছে ১২০ টাকা থেকে ১৩০ টাকায়। শুধু পিঁয়াজ, রসুনই নয় বাজারে ডিমের দাম বেড়েছে। প্রতি হালি ব্রয়লার মুরগির লাল ডিম পাইকারি ৩৩ টাকা। খুচরা ৩৬ থেকে ৩৮ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। হাঁসের ডিমের হালি পাইকারি ৪০ টাকা,  খুচরা ৪৪ টাকা থেকে ৪৬ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

এছাড়া সব ধরনের পন্যের দাম বেড়েছে। তবে চালের বাজার এখনো স্বাভাবিক অবস্থায় রয়েছে। শুক্রবার রাজধানীর যাত্রাবাড়ী, দয়াগঞ্জ, স্বামীবাগ,শাহজাহানপুর, মালিবাগ বাজার, কাওরান বাজার, শান্তিনগর, ফকিরাপুল বাজার ঘুরে এ চিত্র দেখা গেছে।

খুচরা বাজারে (কেজি হিসেবে) গোল আলু ২৪ টাকায়, কাচা মরিচ ৯০ টাকা থেকে ১০০ টাকায়, শশা ৪০ টাকা থেকে ৪৫ টাকায়, গাজর ৫০ টাকা থেকে ৫৫ টাকায়, লম্বা বেগুন ৬০ টাকা, গোল বেগুন ৬৫ থেকে ৭০ টাকায়, পেপে ৪০ টাকা, টমেটো ১০০ টাকা, করলা, ভেন্ডি,  দুন্দল, কচুর ছড়া এবং কাকরোল ৫০ টাকা, ধনিয়া পাতা ৪০০ টাকা, জিঙ্গা ৭০ টাকা, বটবটি ১০০ টাকা, পটল ৬০ টাকা থেকে ৭০ টাকা, কচুর লতি ৫০ টাকা থেকে ৫৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে করতে দেখা গেছে।

এছাড়া, আমদানি ও দেশি মশুর ডাল মানভেদে কেজিতে ৫ থেকে ১৫ টাকা পর্যন্ত বৃদ্ধি পেয়েছে। বাজার ঘুরে দেখা গেছে, তুরষ্ক থেকে আমাদানি করা বড় দানার মশুর ডাল প্রতি কেজি ৯৫ থেকে ১০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে, যা গত সপ্তাহেছিল ৯০ থেকে ৯৫ টাকা, আর মাঝারী দানার আমাদানি মশুর ডাল কেজি প্রতি ১০ টাকা বেড়ে  ১০০ থেকে ১১০ টাকা বিক্রি হচ্ছে, গেল সপ্তাহেছিল ৯০ থেকে ১০৫ টাকা, দেশি প্রতি কেজি ১২৫ থেকে ১৩০ টাকা, নেপালী মশুর ডাল প্রতি কেজি ১৩০ থেকে ১৩৫ টাকায় বিক্রি করতে দেখা গেছে।

এ হিসেবে প্রতি কেজি সবজিতে ডালের দাম বেড়েছে ১০ থেকে ২০ টাকা পর্যন্ত। আর এর কারণ হিসেবে খুচরা দোকানিরা বলছেন, আবহাওয়া খারাপ হওয়ার কারনে অনেক পণ্য আড়তে সময়মতো পৌঁছাতে না পারায় বাজারে সরবরাহ কমেছে। যে কারণে পাইকারি বাজারে দাম বাড়ায় কিছুটা বেশি দামে বিক্রি করা হচ্ছে।

অন্যদিকে যাত্রাবাড়ি ও কাওরান বাজারের আড়তদারদের সঙ্গে কথা বললে তারা জানান, দেশের অনেক জেলায় পানিবন্দি হওয়া ফসলি জমি তলিয়ে গেছে।

এছাড়া বন্যার কারণে রাস্তাঘাট ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। সে জন্য পণ্যবাহী গাড়ি ঢাকায় আসতে পারছে না। খবর রয়েছে, অনেক পণ্য ট্রাকেই পচে গেছে। এসব মিলিয়ে যতটুকু বৃদ্ধি হয়েছে তাকে বৃদ্ধি বলা চলে না। পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়ে আসলে বাজার স্থিতিশীল হবে।