September 28, 2021

দৈনিক প্রথম কথা

বাংলাদেশের জাতীয় দৈনিক

টেস্টে অকৃতকার্যরা বোর্ড পরীক্ষায় অযোগ্য

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ ক্লাসে ৭০ শতাংশ উপস্থিতির ভিত্তিতে শিক্ষার্থীদের এসএসসি ও এইচএসসির মতো পাবলিক পরীক্ষায় অংশ গ্রহণের সিদ্ধান্ত বাতিল করেছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। এর ফলে এখন আগের মতোই নির্বাচনী পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়ে শিক্ষার্থীদের পাবলিক পরীক্ষায় অংশ নিতে হবে।

আজ সোমবার শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের এক আদেশে গত ১ মার্চ জারি করা পরিপত্র বাতিল করা হয়। শিক্ষাসচিব নজরুল ইসলাম খানের সই করা ওই পরিপত্রে পাবলিক পরীক্ষার আগে নির্বাচনী পরীক্ষায় অংশ নিয়ে অনুত্তীর্ণ কিন্তু ৭০ শতাংশ উপস্থিতি ছিল এমন শিক্ষার্থীদের পাবলিক পরীক্ষায় অংশগ্রহণের বিষয়টি নিশ্চিত করতে সব বিদ্যালয়, মহাবিদ্যালয়, কারিগরি বিদ্যালয় ও মাদ্রাসা প্রধানদের নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল।

সহকারী সচিব অসীম কুমার কর্মকারের সই করা আজকের আদেশে বলা হয়, ওই নির্দেশনা সংবলিত পরিপত্র জারির পর শিক্ষক-অভিভাবক, শিক্ষার্থী, শিক্ষাবিদ ও সুশীল সমাজের মধ্যে বিরূপ প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়। বিভিন্ন বিদ্যালয়, কলেজ ও মাদ্রাসা থেকে সংশ্লিষ্ট নির্বাচনী পরীক্ষায় উত্তীর্ণ না হওয়া সত্ত্বেও অযোগ্য, অনিয়মিত ছাত্রছাত্রীকে পাবলিক পরীক্ষায় অংশগ্রহণের জন্য পাঠানো মোটেও কাম্য নন তাঁদের কাছে। এতে নিয়মিত ও মেধাবী শিক্ষার্থীদের ওপর বিরূপ প্রভাব পড়বে। শুধুমাত্র ৭০ শতাংশ ক্লাস হাজিরার ভিত্তিতে চূড়ান্ত পরীক্ষায় অংশগ্রহণের সুযোগ দেওয়া হলে পরীক্ষার্থীদের লেখাপড়ায় মনোযোগ নষ্ট হবে ও পরীক্ষার জন্য প্রস্তুতি নেওয়ার গুরুত্ব কমে যাওয়ার আশঙ্কা থেকে যাবে। এতে পাবলিক পরীক্ষার ফলাফলের ওপর নেতিবাচক প্রভাব পড়তে পারে।

নতুন আদেশে প্রচলিত নিয়মের কথা উল্লেখ করে বলা হয়, অসুস্থতা, দুর্ঘটনা, প্রাকৃতিক দুর্যোগ প্রভৃতি কারণে কোনো শিক্ষার্থী নির্বাচনী পরীক্ষা দিতে না পারলে তার আগের একাডেমিক রেকর্ড ও ক্লাস কার্যক্রমের ভিত্তিতে সংশ্লিষ্ট শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান তার চূড়ান্ত পরীক্ষায় অংশ গ্রহণের সুযোগ দেওয়ার বিষয়টি বিবেচনা করতে পারে।