September 28, 2021

দৈনিক প্রথম কথা

বাংলাদেশের জাতীয় দৈনিক

ভিটেমাটি ছাড়ার আগে শেষ প্রার্থনা

কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি : সাবেক ছিটমহল দাসিয়ারছড়ার দেবিরপাঠ গ্রামের হিন্দু ধর্মাবলম্বীরা ভারতে যাওয়ার আগে শেষ প্রার্থনা অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছে। রোববার শুরু হওয়া এ অনুষ্ঠান চলবে শুক্রবার পর্যন্ত।

এ গ্রামের বাসিন্দা কৃষ্ণকান্ত বর্মণের বাড়ির উঠোনে চলছে মনসা পূজার অনুষ্ঠান চলছে। ছামিয়ানার নিচে লোকে লোকারণ্য।

তিনি বলেন, “ভারত যেতে নাম লেখাইছি। যেকোনো সময় বাংলাদেশ ছাড়া লাগবে। নিজ দেশ ভারতে যাব। এখানে অনেক ভাই-বেরাদার থাকবে। আমরা চলে যাব। পাড়া-প্রতিবেশীরা থেকে যাবে। শত বছরের বাপ-দাদার ভিটেমাটি ছেড়ে যেতে কষ্ট হচ্ছে। এজন্য পূজা-অর্চনার আয়োজন করা হয়েছে। পাঁচ দিনব্যাপী এ অনুষ্ঠান চলবে।”

উল্লেখ্য, দেবীরপাঠ গ্রামের হিন্দু সম্প্রদায়ের প্রায় অর্ধশতাধিক মানুষ ভারত যেতে মত দিয়েছে। তারা প্রস্তুতি নিচ্ছে ভারতে যাওয়ার।

এ গ্রামের লিটনচন্দ্র বর্মণ বলেন, “এতদিন আমরা ভারতের ভূ-খণ্ডে ছিলাম। কিন্তু সে দেশে যেতে পারিনি। এবার নিজ দেশে যেতে পেরে আমি খুশি।”

নিজেদের যাত্রায় ও বাংলাদেশে রেখে যাওয়া পাড়া-প্রতিবেশীদের মঙ্গলের জন্য ভারতে যাওয়ার আগে ছিটমহল স্বাধীনের একদিন পর পূজা-অর্চনার আয়োজন করে তারা। পূজা শেষে কীর্তন শুরু হয়। চলে সারারাত। এ অনুষ্ঠান চলবে পাঁচ দিনব্যাপী।

পূজায় অংশ নিতে আসা কয়েকজন জানায়, তাদের চাওয়ার কিছু নেই। ভারত সরকার যেভাবে নিয়ে যাবে তারা তাতেই খুশি। শান্তিতেই যেতে চায় তারা। যেতে চায় নিরাপত্তার সাথে।

জেলার ১২টি ছিটমহলে এক হাজার ৮৭৩ পরিবারে লোকসংখ্যা আট হাজার একশো ৩২ জন। হিন্দু সম্প্রদায় প্রায় সাড়ে পাঁচ শতাধিক। এর মধ্যে দেড় শতাধিক মানুষ ভারত যেতে নিবন্ধন করেছে।

জানা গেছে, জমির বিষয়ে দু’রাষ্ট্রের সরকারের পক্ষ থেকে তাদের তেমন কিছু স্পষ্ট করে বলা হয়নি। তবে হিনউ সম্প্রদায়েরা দাবি তুলেছে, সরকার এখানকার জমিরগুলোর দাম নির্ধারণ করে দিলে তাদের সুবিধা হতো।

জেলা প্রশাসক খান মো. নুরুল আমিন বলেন, “যারা ভারতে যেতে অভিমত দিয়েছে ৩০ নভেম্বরের মধ্যে চারটি পয়েন্ট দিয়ে ট্রাভেল পাসের মাধ্যমে তাদের পাঠানো হবে।”

তিনি আরো বলেন, “জেলা প্রশাসকের অনুমতি সাপেক্ষে জমি কেনাবেচা করা যাবে। শুধু হিন্দু পরিবার নয়, দাসিয়ারছড়াসহ কুড়িগ্রামের ১২টি ছিটমহলে নিরাপত্তা জোড়দার করা হয়েছে।”