October 23, 2021

দৈনিক প্রথম কথা

বাংলাদেশের জাতীয় দৈনিক

মা-মেয়ের চিকিৎসার দায়িত্ব এখন আমাদের: তথ্যমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক : মাগুরায় সরকার সমর্থক দুই পক্ষের সংঘর্ষে গর্ভাবস্থায় গুলিবিদ্ধ নাজমা বেগম ও নবজাতকের চিকিৎসার দায়িত্ব এখন সরকারের বলে জানিয়েছেন তথ্যমন্ত্রী আহসানুল হক ইনু।

সোমবার বেলা পৌনে ৩টার দিকে ঢামেকে এসে তিনি সাংবাদিকদের একথা জানান।

হাসপাতালে এসে প্রথমে তিনি এনআইসিতে ঢুকে নবজাতকের অবস্থা দেখেন। এরপর চিকিৎসকদের প্রয়োজনীয় পরামর্শ দেন। চিকিৎসকেরা তাকে জানায়, নবজাতকের অবস্থা এখন উন্নতির দিকে। নবজাতকের প্রতি তারা সতর্ক দৃষ্টি রেখেছে।

ইনু এরপর গাইনি বিভাগে গিয়ে নাজমা বেগমের খোঁজ-খবর করেন। এসময় তাকে তিনি আশ্বস্ত করেন এবং তার হাতে চিকিৎসা খরচ বাবদ ২০ হাজার টাকা তুলে দেন।

উপস্থিত সাংবাদিকদের এসময় তথ্যমন্ত্রী বলেন, “এ ঘটনায় কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না, সে যে দলেরই হোক। এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত দুজনকে এরই মধ্যে গ্রেফতার করা হয়েছে। মা-মেয়ের চিকিৎসার দায়িত্ব এখন আমাদের।”

সাংবাদিকদের উদ্দেশে তিনি আরো বলেন, “আপনাদের প্রতি আমার অনুরোধ, বিষয়টি আপনারা আরো একটু খতিয়ে দেখবেন। এ সংঘর্ষ সামাজিক কোনো কারণে, নাকি রাজনৈতিক।”

উল্লেখ্য, আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে ২৩ জুলাই বিকেলে মাগুরা শহরের দোয়ারপাড়ায় সাবেক ছাত্রলীগ কর্মী কামরুল ভূইয়ার সঙ্গে সাবেক যুবলীগ কর্মী মহম্মদ আলী ও আজিবরের সমর্থকদের সংঘর্ষ হয়।

এসময় কামরুলের বড় ভাই বাচ্চু ভূঁইয়ার অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রী নাজমা বেগম (৩০) ও প্রতিবেশী মিরাজ হোসেন গুলিবিদ্ধ হন। কামরুলের চাচা আব্দুল মোমিন ভূঁইয়া গুলিতে নিহত হন।

ঘটনার রাতেই মাগুরায় অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে নাজমার গুলিবিদ্ধ শিশুটি ভূমিষ্ঠ হয়। দুই দিন পর তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে আনা হয়।

এ ঘটনায় রোববার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে ঢাকা-মাগুরা সড়কের ওয়াপদা এলাকা থেকে মামলার ১৩ নম্বর আসামি নজরুল ইসলামকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

এর আগে ২৬ জুলাই রাতে গ্রেফতার করা হয় মামলার পাঁচ নম্বর আসামি চা-দোকানি সুমন ও ১৪ নম্বর আসামি স্থানীয় মুদি দোকানি সোবহানকে।