December 6, 2021

দৈনিক প্রথম কথা

বাংলাদেশের জাতীয় দৈনিক

১৫৯ বাংলাদেশিকে ফিরিয়ে আনার প্রক্রিয়া স্থগিত

কুটনৈতিক প্রতিবেদক : দেশে ফেরা হলো না মিয়ানমারের জলসীমায় উদ্ধার হওয়া ১৫৯ জন অভিবাসীর। এসব বাংলাদেশি অবৈধভাবে সমুদ্রপথে ট্রলারে করে মালয়েশিয়া যাওয়ার চেষ্টা করার সময় তাদের মিয়ানমারের জলসীমা থেকে উদ্ধার করা হয়। আজ বুধবার তাদের দেশে ফেরত পাঠানোর কথা ছিল। তবে মিয়ানমারে বিরূপ আবহাওয়ার কারণে সকালে ১০টায় তা স্থগিত করে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি)।

এর আগে গত ৩০ জুলাই তাদের দেশে ফিরিয়ে আনার কথা ছিল। তবে ঘূর্ণিঝড় কোমেনের কারণে তা স্থগিত হয়ে যায়।

এ প্রসঙ্গে কক্সবাজার ১৭ বিজিবি ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লে. কর্নেল মো. রবিউল ইসলাম গণমাধ্যমকে জানান, তার নেতৃত্বে আজ সকাল ১০টার দিকে বাংলাদেশ থেকে একটি প্রতিনিধি দল ঘুমধুম সীমান্তের মৈত্রী সেতু দিয়ে মিয়ানমারে যাওয়ার কথা ছিল। কিন্তু মিয়ানমারে ভয়াবহ বন্যা ও ভারী বর্ষণের কারণে এই কার্যক্রম এবং পতাকা বৈঠক স্থগিত করা হয়েছে। পরবর্তীতে সুবিধাজনক সময়ে অভিবাসীদের দেশে ফিরিয়ে আনা হবে।

কক্সবাজারের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার তোফায়েল আহমদ বলেন, আজ সকাল থেকে কক্সবাজারেও বৃষ্টি হচ্ছে। এই পরিস্থিতিতে বিপুলসংখ্যক অভিবাসীকে বাংলাদেশের ঘুমধুম সীমান্তে নিয়ে আসা এবং সেখান থেকে তাদের বাসে করে কক্সবাজার শহরের সাংস্কৃতিক কেন্দ্রে নিয়ে আসা কঠিন ও ঝুঁকিপূর্ণ।

পুলিশ জানিয়েছে, ১৫৯ জন অভিবাসীর মধ্যে নারায়ণগঞ্জের ১২ জন, কিশোরগঞ্জের ১৩ জন, চট্টগ্রামের ১৮ জন, ফরিদপুরের ১২ জন, হবিগঞ্জের ১৭ জন, নরসিংদীর ৮০ জন, নওগাঁর দু’জন, নাটোরের একজন, শরিয়তপুরের তিনজন ও বরিশালের একজন। তারা এখন মিয়ানমারের মংডু জেলার একটি আশ্রয়কেন্দ্রে অবস্থান করছেন।
বিজিবি ও পুলিশ সূত্র আরও জানায়, ৮ জুন প্রথম দফায় ১৫০ জন, ১৯ জুন দ্বিতীয় দফায় ৩৭ জন ও ২২ জুলাই মিয়ানমার থেকে তৃতীয় দফায় ১৫৫ জন অভিবাসীকে দেশে ফেরত আনা হয়।