October 24, 2021

দৈনিক প্রথম কথা

বাংলাদেশের জাতীয় দৈনিক

জিনের নির্দেশে বিয়ে করা দুই কিশোর আটক!

মাদারীপুর প্রতিনিধি : গায়ে-হলুদ, প্রীতিভোজ, বিয়ের ও বর-কনের সাজসজ্জা সব আয়োজনই ছিল। উপস্থিত ছিলেন আত্মীয় থেকে শুরু করে গ্রামের মানুষ। দুই দিনব্যাপী বিয়ের এ অনুষ্ঠানটি মজা ও আনন্দে উপভোগ করেন সবাই।বিয়ের বর-কনে দুজনেই যে ছিল কিশোর!

মাদারীপুরের কালকিনি উপজেলার বাঁশগাড়ি ইউনিয়নের আউলিয়ারচর গ্রামে অলৌকিক ক্ষমতা জাহির করতে দুই কিশোরের এ বিয়ের আয়োজন করা হয়। গত শনি ও রবিবার ( ২ ও ৩ আগস্ট) অনুষ্ঠিত এই ঘটনার ভিডিও এলাকার লোকজনের মোবাইলে মোবাইলে এবং ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়লে তোলপাড় শুরু হয়। এর জের ধরে গতকাল শনিবার দুপুরে ওই ঘটনায় জড়িত অভিযোগে দুই কিশোরকে আটক করে পুলিশ।

শনিবার দুপুরে ওই গ্রামে যান কালকিনি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. হেমায়েত উদ্দিন ও কালকিনি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা কৃপা সিন্দু বালা। পুলিশ জিজ্ঞাসাবাদ করার জন্য জুয়েল ও নাজমুলকে আটক করে কালকিনির খাসেরহাট পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রে নিয়ে আসে।

গ্রামবাসী জানায়, শনিবার (২ আগস্ট) গ্রামের জসিম সাজির ছেলে জুয়েল সাজি (১৬) ও আব্দুল জব্বারের ছেলে নাজমুল বেপারীর (১৭) মধ্যে গায়ে হলুদের অনুষ্ঠান হয়। পরের দিন তাদের মধ্যে বিয়ের সামাজিক আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন হয়। আয়োজন করা হয় প্রীতিভোজের।  খাদ্য তালিকায় ছিল পোলাও, গরুর ও মুরগির মাংস, মাছ ও মিষ্টি। তৈরি করা হয় বিয়ের মঞ্চ, বাড়িতে সাজসজ্জা করা হয়, নির্মাণ করা হয় তোরণ। এলাকায় বিদ্যুৎ না থাকলেও ব্যাটারি দিয়ে বাড়িতে দুইদিন সাউন্ড সিস্টেমে বাজানো হয় গান। বিয়ের মঞ্চে বর সাজে নাজমুল হোসেন ও কনে সাজে জুয়েল।  দুদিনের অনুষ্ঠানটি সম্পন্ন হয়েছে জুয়েল সাজির বাড়িতে।

গ্রামবাসী সূত্রে জানা যায়, জুয়েল ঢাকার জিঞ্জিরায় একটি হোটেলে কাজ করত আর নাজমুল হোসেন গ্রামে কৃষিকাজ করে। প্রায় সাত মাস আগে জুয়েল গ্রামে কবিরাজি শুরু করে। সে প্রতি মঙ্গলবার, বৃহস্পতিবার ও শনিবার রাতে মুর্শিদী গানের তালে তালে জিকির করে রোগীদের চিকিৎসা দিতো। তাকে এ কাজে সহায়তা করতেন তার মা নাজমা বেগম।

নাজমা বেগম গ্রামে প্রচার চালান যে, জিনে আদেশ করেছে তার ছেলে জুয়েলকে একটি ছেলের সঙ্গে বিয়ে দিতে হবে। বিয়ের সব আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন করতে হবে। এ আদেশ পালন না করলে জুয়েল পাগল অথবা বোবা হয়ে যাবে। গ্রামবাসীর কাছ থেকে টাকা তুলে বিয়ের বাজার করা হয়। নাজমুল হোসেনকে এ বিয়েতে বর হওয়ার জন্য প্রস্তাব দিলে সে রাজি হয়ে যায়।

জুয়েল সাজির দাবি, সে জিন পেয়েছে। জিনের নির্দেশই মানুষের চিকিৎসা করে। জিনের নির্দেশেই তাকে ছেলের সঙ্গে বিয়ে দেওয়া হয়েছে। কিন্তু বিয়ে হলেও তারা ঘর সংসার করছে না।

নাজমুল হোসেন বলে, জুয়েলকে জিনের হাত থেকে বাঁচানোর জন্য তার মা আমাকে বর সেজে বিয়ে করার অনুরোধ করে। কোনও কিছু না ভেবেই আমি রাজি হয়ে যাই।

নাজমুলের বাবা আব্দুল জব্বার বেপারী বলেন, বিয়ের বিষয়টি আমরা জানতাম না। একটি অনুষ্ঠান করার কথা বলে আমার ছেলেকে নেওয়া হয়েছে। এখন এই ঘটনা ছড়িয়ে পড়ায় লজ্জায় আমরা বাড়ি থেকে বের হতে পারছি না।

জুয়েলের মা নাজমা বেগম বলেন, তিন বছর আগে আমার বড় ছেলে নিখোঁজ হয়ে গেছে। আমাদের ধারণা জিনে তাকে নিখোঁজ করেছে। তাই জিন জুয়েলকে একটি ছেলের সঙ্গে বিয়ে দেওয়ার আদেশ করায় এ বিয়ের অনুষ্ঠান করতে হয়েছে।

কালকিনি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা কৃপা সিন্দু বালা বলেন, জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ওই দুই কিশোরকে আটক করা হয়েছে। বিষয়টি নানা দিক থেকে খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

কালকিনি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) হেমায়েত উদ্দিন বলেন, দুজনে একটি মিথ্যা বিয়ের নাটক সাজিয়ে অস্থির পরিবেশ তৈরি করে ফেলেছিল।