October 23, 2021

দৈনিক প্রথম কথা

বাংলাদেশের জাতীয় দৈনিক

বিচারপতি পরিবর্তন চেয়ে জনকণ্ঠের আবেদন খারিজ

আদালত প্রতিবেদক : বিচারপতি পরিবর্তন চেয়ে জনকণ্ঠের করা আবেদন খারিজ করে দিয়েছেন আদালত।

রোববার প্রধান বিচারপতি এস কে সিনহার নেতৃত্বাধীন চার বিচারপতির আপিল বেঞ্চ এ আদেশ দেন।

আদালতে জনকণ্ঠের পক্ষে অ্যাডভোকেট সালাউদ্দিন দোলন আবেদনটি উপস্থাপন করলে আদালত সেটি গ্রহণ না করে খারিজ করে দেন।

এছাড়া আরো দুটি আবেদন করেছে জনকণ্ঠ। সে দুটির একটি হল আদালত প্রসঙ্গে যে লেখা প্রকাশিত হয়েছে এ বিষয়ে চারজন সাক্ষীকে আদলতে তলব করার আবেদন। অপরটি হল আদালতের নির্দেশ অনুযাযী জনকণ্ঠ এ লেখার তথ্য প্রমাণসহ আদালতে জমা দিয়েছে। আরো তথ্যপ্রমাণ জমা দেওয়ার জন্য সময়ের আবেদন করেছে জনকণ্ঠ।

সালাউদ্দিন কাদের (সাকা) চৌধুরীর আপিলের রায় ঘিরে বিচারকদের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন তুলে নিবন্ধ প্রকাশ করায় গত ২৯ জুলাই দৈনিক জনকণ্ঠের সম্পাদক ও নির্বাহী সম্পাদককে তলব করেন আদালত।

ওই নিবন্ধের বিষয়ে ব্যাখ্যা দিতে জনকণ্ঠ সম্পাদক আতিকুল্লাহ খান মাসুদ এবং নিবন্ধের লেখক ও ওই পত্রিকার নির্বাহী সম্পাদক স্বদেশ রায়কে ৩ আগস্ট আদালতে হাজির হওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়।

৩ আগস্ট সম্পাদক ও প্রকাশক আতিকুল্লাহ খান মাসুদ ও নির্বাহী সম্পাদক স্বদেশ রায় আদালতে জবাব দাখিল করতে উপস্থিত হন। তাদের পক্ষে ৩ মাসের সময় আবেদন করেন অ্যাডভোকেট সালাউদ্দিন দোলন। সময় আবেদনের শুনানি করে আদালত রোববার পর্যন্ত সময় দেন।

উল্লেখ্য, গত ১৬ জুলাই দৈনিক জনকণ্ঠের উপসম্পাদকীয় বিভাগে ‘সাকার পরিবারের তৎপরতা॥ পালাবার পথ কমে গেছে’ শিরোনামে পত্রিকাটির নির্বাহী সম্পাদক স্বদেশ রায়ের লেখা একটি নিবন্ধ প্রকাশিত হয়।

নিবন্ধের এক জায়গায় স্বদেশ রায় লেখেন, “…৭১-এর অন্যতম নৃশংস খুনী সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরী। নিষ্পাপ বাঙালী রক্তে যে গাদ্দারগুলো সব থেকে বেশি হোলি খেলেছিল এই সাকা তাদের একজন। এই যুদ্ধাপরাধীর আপীল বিভাগের রায় ২৯ জুলাই। পিতা মুজিব! তোমার কন্যাকে এখানেও ক্রশে পিঠ ঠেকিয়ে দাঁড়িয়ে থাকতে হচ্ছে। তাই যদি না হয়, তাহলে কিভাবে যারা বিচার করছেন সেই বিচারকদের একজনের সঙ্গে গিয়ে দেখা করে সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরীর পরিবারের লোকেরা? তারা কোন পথে বিচারকের কাছে ঢোকে, আইএসআই ও উলফা পথে না অন্য পথে? ভিকটিমের পরিবারের লোকদেরকে কি কখনও কোন বিচারপতি সাক্ষাত দেয়। বিচারকের এথিকসে পড়ে!…”