September 17, 2021

দৈনিক প্রথম কথা

বাংলাদেশের জাতীয় দৈনিক

বিলুপ্ত ছিটমহলের জমির নথিপত্র বিনিময়

লালমনিরহাট প্রতিনিধি : বাংলাদেশ ও ভারতীয় ভুখণ্ডে সদ্য বিলুপ্ত ১৬২টি ছিটমহলের জমির পুরনো নথিপত্র বিনিময় করেছে উভয় দেশ। এসব নথির মধ্যে আছে এতদিন বাংলাদেশের ভেতরে থাকা ১১১টি এবং ভারতের ভেতরে থাকা ৫১টি বাংলাদেশি ছিটমহলের পুরনো রেকর্ডসহ অন্যান্য কাগজপত্র। বিনিময়ের অংশ হিসেবে ভারতে থাকা ১১১টি ছিটমহলের জমির পুরনো নথি প্রদান করেছেন বলে লালমনিরহাটের বুড়িমারী স্থলবন্দরের ওপারে ভারতের চ্যাংরাবান্ধায় দুদেশের যৌথ বৈঠক শেষে জানিয়েছেন লালমনিরহাটের জেলা প্রশাসক হাবিবুর রহমান।

সোমবার (১০ আগস্ট) ভারতের চ্যাংড়াবান্ধা ব্লক ডেভেলপমেন্টের সভাকক্ষে এই বৈঠক দুপুর সাড়ে ১২টায় শুরু হয়ে বিকেল ৪টা পর্যন্ত এই বৈঠক চলে।

বৈঠক শেষে বুড়িমারী স্থলবন্দরে লালমনিরহাটের জেলা প্রশাসক হাবিবুর রহমান বলেন, সদ্য বিনিময় হওয়া ছিটমহলগুলোর জমিজমার যাবতীয় কাগজপত্র হস্তান্তর এবং ভারতে যেতে ইচ্ছুক অপশন দেয়া নাগরিকদের ট্রাভেল পাস ইস্যুসহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ কিছু এজেন্ডা নিয়ে ফলপ্রসূ আলোচনা হয়েছে। ভারতে যেতে ইচ্ছুক অপশন প্রদানকারী নাগরিকদের শীঘ্রই ট্রাভেল পাস ইস্যু করাসহ জমিজমার জরিপ কার্যক্রম শুরু করা হবে। তবে ৯৭৯ জন অপশন প্রদানকারীর মধ্যে ১৫ জন না যাওয়ার জন্য আবেদনপত্র দিয়েছেন। এছাড়া ভারতে যাওয়ার ইচ্ছা পোষণ করে ভারতীয় হাইকমিশনে আরও ৫১জন নাগরিক আবেদনপত্র জমা দিয়েছেন। এগুলো বিষয় নিয়েও আলোচনা হয়েছে।

এর আগে দুপুরে বৈঠকে অংশ নিতে বুড়িমারী স্থলবন্দর দিয়ে বাংলাদেশি ১৬ সদস্যের একটি প্রতিনিধি দল সেখানে যান। লালমনিরহাটের জেলা প্রশাসকের নেতৃত্বে সেখানে যাওয়া প্রতিনিধি দলে আরও ছিলেন কুড়িগ্রাম, নিলফামারী ও পঞ্চগড়ের জেলা প্রশাসকসহ অন্যরা। অপরদিকে ভারতীয় পক্ষে নেতৃত্ব দেবেন কোচবিহারের জেলা শাসক পি উল্গানাথন।

ভারতীয় প্রতিনিধি দলের সদস্য ও কুচবিহার অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট(ভূমি) শ্রীমতি আয়শা রানী বলেন, উভয় দেশের উচ্চ পর্যায়ের সিদ্ধান্তগুলো মাঠ পর্যায়ে সুচারুভাবে বাস্তবায়নের জন্যই এই গুরুত্বপূর্ণ বৈঠকটি সুন্দরভাবে অনুষ্ঠিত হয়েছে। আপনারা জানেন, যৌথ বাউন্ডারি ওয়ার্কিং গ্রুপের সিদ্ধান্তগুলোই আমরা বাস্তবায়ন করে থাকি। তাই খুব শীঘ্রই সিদ্ধান্তগুলো কার্যকর কার্যক্রম শুরু হয়ে যাবে।