July 1, 2022

দৈনিক প্রথম কথা

বাংলাদেশের জাতীয় দৈনিক

অনলাইনে ট্রেজারি চালান যাচাই করা যাবে

নিজস্ব প্রতিবেদক : ট্রেজারি চালান যাচাইয়ে ঝামেলা আর থাকছে না। এখন থেকে অনলাইনে সরকারি দফতরে জমা দেওয়া অর্থের ট্রেজারি চালান যাচাই করা যাবে। এ জন্য হিসাব মহানিয়ন্ত্রকের ওয়েবসাইটে নতুন একটি ট্যাব যুক্ত করা হয়েছে। প্রাথমিকভাবে বাংলাদেশ ব্যাংকের সব শাখায় ও সোনালী ব্যাংকের মহানগর ও জেলা সদরে জমা চালান যাচাই করা যাবে।

১৬ সেপ্টেম্বর অর্থ মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব মুসলিম চৌধুরী স্বাক্ষরিত এ সংক্রান্ত এক পরিপত্র জারি করা হয়েছে। পরিপত্রে সরকারি সব দফতরকে অনলাইনে ট্রেজারি চালানের সঠিকতা যাচাই করতে বলা হয়েছে।

পরিপত্রে বলা হয়েছে, সরকারি আর্থিক ব্যবস্থাপনা ডিজিটালাইজেশনের মাধ্যমে জনগণকে উন্নত সেবা দেওয়ার অংশ হিসেবে ট্রেজারি চালানের সঠিকতা যাচাইয়ের জন্য একটি অনলাইন প্ল্যাটফরম তৈরি করা হয়েছে। এ জন্য হিসাব মহানিয়ন্ত্রকের ওয়েবসাইটে (www.cga.gov.bd) অনলাইন চালান ভেরিফিকেশন (online chalan verification) নামে একটি ট্যাব যুক্ত করা হয়েছে।

এর মাধ্যমে বাংলাদেশ ব্যাংকের যে কোনো শাখা অথবা সোনালী ব্যাংকের মহানগর বা জেলা সদরের যে কোনো শাখায় জমা দেওয়া ট্রেজারি চালানের সঠিকতা পরবর্তী কার্যদিবসের দুপুরের মধ্যেই সহজেই যাচাই করা যাবে। তবে জেলা সদরের বাইরে অবস্থিত সোনালী ব্যাংকের ট্রেজারি শাখাগুলোতে জমা দেওয়া চালান এই ব্যবস্থায় যাচাই করা যাবে না।

প্রসঙ্গত, সরকারি টেন্ডার, দরপত্র, নিলামের অর্থ পরিশোধ ও বিভিন্ন ধরনের কর ট্রেজারি চালানের মাধ্যমে সরকারি কোষাগারে জমা দিতে হয়।

গত ১ জুলাই ভুয়া চালানের মাধ্যমে গাড়ি কেনাবেচার অভিযোগে শেখ রইসউদ্দৌলা প্রিন্স ও তার স্ত্রী ফাতেমা বেগম লাকীর বিরুদ্ধে কাফরুল থানায় মামলা করে দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) উপ-পরিচালক জাহাঙ্গীর আলম। এ চক্রটি ২০০৪ থেকে ২০১২ সাল পর্যন্ত ব্যাংকের ভুয়া ট্রেজারি চালানের মাধ্যমে ৫০ টিরও বেশি শুল্কমুক্ত বিদেশী গাড়ি কিনেছিল।

আবার অনেক ক্ষেত্রে সরকারি দফতরে ট্রেজারি চালান জমা দেওয়ার পর চালান প্রদানকারী ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানকে চালান ভেরিফিকেশন করে নিয়ে আসতে বলা হয়। এতে সময় ও আর্থিকভাবে ক্ষতি সম্মুখীন হয়ে থাকে।

পরিপত্র আরও বলা হয়েছে, এ পরিপত্র জারির পর হতে বর্তমান পদ্ধতিতে মহানগর ও জেলা সদরের ক্ষেত্রে চালান ভেরিফিকেশন রহিত করা হল। অনলাইনে চালান যাচাইয়ের সময় চালানের কপি ও অনলাইনের প্রাপ্ত প্রতিবেদনের মধ্যে অমিল থাকলে সনাতন পদ্ধতি চালান ভেরিফিকেশন করতে হবে।

এ প্রসঙ্গে এনবিআরের ঊর্ধ্বতন এক কর্মকর্তা জানান, অর্থ মন্ত্রণালয়ের জারি করা পরিপত্রটি আদেশ আকারে জারি করে আয়কর সার্কেল, কাস্টমস হাউস, ভ্যাট কমিশনারেটগুলোতে পাঠানো হবে।