September 19, 2021

দৈনিক প্রথম কথা

বাংলাদেশের জাতীয় দৈনিক

কুড়িগ্রামে চিরনিদ্রায় শায়িত সৈয়দ শামসুল হক

ডেস্ক:  জন্মস্থান কুড়িগ্রামে সমকালীন বাংলা সাহিত্যের আধুনিক কবি ও সব্যসাচী লেখক সৈয়দ শামসুল হকের দাফন সম্পন্ন হয়েছে। যেখানে সমাহিত হবার অন্তিম ইচ্ছে প্রকাশ করে কয়েকদিন আগে সম্মতিপত্র দিয়েছিলেন কবি সেখানেই চিরনিদ্রায় শায়িত হলেন।
বুধবার বিকেল সাড়ে চারটার দিকে নামাজে জানাজা শেষে কুড়িগ্রাম সরকারি কলেজের প্রধান ফটকের দক্ষিণ পাশে কবিকে সমাহিত করা হয়।
এর আগে বেলা ৩টা ৫৬ মিনিটে ঢাকা থেকে হেলিকপ্টারে করে কবির মরদেহ কুড়িগ্রাম সরকারি কলেজ মাঠে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে কুড়িগ্রামবাসীর পক্ষ থেকে কবির মরদেহ গ্রহণ করেন জেলা পরিষদের প্রশাসক জাফর আলী ও জেলা প্রশাসক খান মো. নুরুল আমিন।
এ সময়ে সংস্কৃতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর, আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির নানক, কুড়িগ্রাম পৌরসভার মেয়র আবদুল জলিল, জেলা পুলিশ সুপার তবারক উল্লাহ ও কলেজের অধ্যক্ষ সাবিহা খাতুন, কবির স্ত্রী আনোয়ারা সৈয়দ হক, ছেলে দ্বিতীয় সৈয়দ হকসহ অনেকেই উপস্থিত ছিলেন।
হেলিকপ্টার থেকে কবির মরদেহ নামিয়ে কলেজ প্রাঙ্গণে রাখা হয়। সেখানে অপেক্ষায় থাকা কুড়িগ্রাম, রংপুর, লালমনিরহাট, দিনাজপুর, নীলফামারী, পঞ্চগড়, গাইবান্ধসহ আশপাশের এলাকা থেকে হাজারো মানুষ কবির মরদেহে শ্রদ্ধা জানান।
কবির মরদেহে শ্রদ্ধা জানাতে সকাল থেকেই কুড়িগ্রাম সরকারি কলেজমাঠে বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ ভিড় জমাতে থাকেন। সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের নেতৃত্বে বিভিন্ন সাংস্কৃতিক সংগঠন, জেলা প্রশাসন, পুলিশ প্রশাসন, জেলা আওয়ামী লীগ, আওয়ামী লীগের সহযোগী অঙ্গসংগঠন, মুক্তিযোদ্ধা সংসদ, বিভিন্ন রাজনৈতিক দল, রংপুর থেকে বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়, ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটি, আইনজীবী সমিতি, মহিলা পরিষদ, প্রেসক্লাব, ওয়ার্কার্স পার্টি, জাসদ (আম্বিয়া), সাহিত্য ও সংস্কৃতি পরিষদ, শিখা সংসদ, লালমনিরহাট থেকে বিভিন্ন পেশাজীবী সংগঠনের কবির কফিনে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করে।
সৈয়দ হকের ছেলে দ্বিতীয় সৈয়দ হক জানাজা নামাজের আগে দেয়া সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে বলেন, ‘বাবা চলে গেছেন এক বিশাল শূণ্যতা রেখে। তার প্রিয় জলেশ্বরীতে তিনি আবারো ফিরে এসেছেন। আমার বাবা খুব খুশি হয়েছে এ মাটিতে সায়িত হতে পেরে’।
শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে কলেজ মাঠে তার জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। নামাজে জানাজা শেষে তার অন্তিম ইচ্ছে অনুযায়ী তাকে কলেজের প্রবেশ গেটের পাশে দাফন করা হয়।

সূত্র: বাসস