October 23, 2021

দৈনিক প্রথম কথা

বাংলাদেশের জাতীয় দৈনিক

শহীদ বুদ্ধিজীবীদের চূড়ান্ত তালিকা নেই কেন?

ডেস্ক:  আজ  জাতীয় প্রেসক্লাবে এক আলোচনায় আলোচকরা  জানালেন, ‘সরকারের কাছে শহীদ বুদ্ধিজীবীদের পূর্ণাঙ্গ কোনো তালিকা নেই।

পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী ১৯৭১ সালের ১৪ ডিসেম্বর পরিকল্পিতভাবে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক, চিকিৎসক, শিল্পী, লেখক, সাংবাদিকসহ বহু খ্যাতিমান বাঙালিকে বাসা থেকে তুলে নিয়ে হত্যা করে।

বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধে নিজেদের পরাজয় নিশ্চিত জেনেই পাকিস্তানি বাহিনী ওই নিধনযজ্ঞ চালায়; তাদের উদ্দেশ্য ছিল স্বাধীনতার পর যেন বাংলাদেশ যাতে মাথা উঁচু করে দাঁড়াতে না পারে- তা নিশ্চিত করা।

একাত্তরে কতজন বুদ্ধিজীবীকে পাকিস্তানি বাহিনী ও তাদের এদেশীয় দোসররা হত্যা করেছিল, তার কোনো পরিসংখ্যান নেই ।এ ব্যাপারে সংসদে প্রশ্ন করা হলে মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক জানিয়েছিলেন, রাষ্ট্রীয়ভাবে শহীদ বুদ্ধিজীবীদের সঠিক তালিকা তার মন্ত্রণালয়ে সংরক্ষিত নেই। তবে সঠিক তালিকা সংগ্রহের প্রচেষ্টা অব্যাহত রয়েছে। তখন আগামী জুনের মধ্যে এই তালিকা প্রকাশের আশাবাদ প্রকাশ করেছিলেন মোজাম্মেল হক।

একাত্তরের নয় মাসব্যাপী যুদ্ধে অনেক বুদ্ধিজীবীকে হত্যা করা হয়। এর মধ্যে ডিসেম্বরে স্বাধীনতা যুদ্ধে বিজয় অর্জনের দুদিন আগে একসঙ্গে অনেককে ধরে নিয়ে হত্যা করা হয়েছিল। তাদের স্মরণে ১৪ ডিসেম্বর দিনটি শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস হিসেবে পালিত হয়।

পূর্ণাঙ্গ তালিকা না থাকার কারণ হিসেবে মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক জানান, বুদ্ধিজীবীদের ‘সঠিক সংজ্ঞা’ না থাকায় শহীদ বুদ্ধিজীবীদের তালিকা তৈরি সম্ভব হচ্ছে না। তবে তালিকা তৈরির উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। এ নিয়ে মন্ত্রণালয় কাজ করছে। ঢাকা কেন্দ্রিক কিছু শহীদ বুদ্ধিজীবীর প্রাথমিক তালিকা আছে। সারা দেশের বিভিন্ন জেলা থেকেও কিছু নামের তালিকা তারা পেয়েছেনে বলে জানান মন্ত্রী।

এদিকে মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘর কর্তৃপক্ষের কাছেও শহীদ বুদ্ধিজীবীদের কোনো তালিকা নেই। এ বিষয়ে মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরের প্রতিষ্ঠাতা ট্রাস্টি মফিদুল হক বলেন, আলাদা করে শহীদ বুদ্ধিজীবীদের তালিকা নেই। তবে এ বিষয়ে অনেক কাজ হয়েছে। যেমন শিক্ষক, চিকিৎসক, আইনজীবী, প্রকৌশলী ও সাংবাদিকদের আলাদা তালিকা রয়েছে। বুদ্ধিজীবীদের সঠিক সংজ্ঞা না থাকায় এ তালিকা তৈরি করা কিছুটা কঠিন।

মফিদুল হক বলেন, হয়তো একজন শিক্ষক নিহত হয়েছিলেন, তাকে সেভাবেই চিহ্নিত করা হয়েছে। তাই এই তালিকা করা কিছুটা কঠিন। একজনের তো ‘ডুয়েল আইডেনটিটি’ও (দ্বৈত পরিচয়) থাকে। তবে শহীদ বৃদ্ধিজীবীদের নিয়ে কাজটা হওয়া উচিত।

এ সম্পর্কে জানা আরো যায়, ১৯৭২ সালে সাড়ে ৩০০ শহীদ বুদ্ধিজীবীর একটি তালিকা করা হয়েছিল। কিন্তু তাও ছিল অসমাপ্ত। পরবর্তী সময়ে এ তালিকাকে চূড়ান্ত রূপ আর দেয়া হয়নি। পরে ১৯৮৪ সালে শহীদ বুদ্ধিজীবীদের সম্পর্কে বিভিন্ন পত্রিকায় প্রকাশিত লেখা নিয়ে ‘শহীদ বুদ্ধিজীবী স্মারক গ্রন্থ’ প্রকাশ করে বাংলা একাডেমি। প্রতিষ্ঠানটি ১৯৮৫ সালে ‘শহীদ বুদ্ধিজীবী কোষ গ্রন্থ’ প্রকাশের সিদ্ধান্ত নেয়। শহীদ বুদ্ধিজীবীদের নাম সংগ্রহের জন্য তখন বাংলা একাডেমি সব জাতীয় দৈনিক পত্রিকায় বিজ্ঞাপন দিয়েছিল। সে সময় প্রতিষ্ঠানটি নিজেরাই ঠিক করে যে শিক্ষক, সাহিত্যিক, সাংবাদিক, ডাক্তার, প্রকৌশলী, আইনজীবী, শিল্পী, চলচ্চিত্রকার, প্রকাশকসহ বিশেষ কিছু পেশাজীবীকে ‘বুদ্ধিজীবী’ হিসেবে বিবেচনা করা হবে।

সেই নীতিমালা অনুযায়ী ১৯৮৫ সালের ১৪ ডিসেম্বর ২৫০ জনের তালিকা নিয়ে শহীদ বুদ্ধিজীবী কোষ গ্রন্থ প্রকাশ করা হয়। যে ২৫০ জন শহীদ বুদ্ধিজীবীর নাম সংগ্রহ করা হয় তাদের অনেকেরই আবাসিক ঠিকানা খুঁজে পাওয়া যায়নি। ফলে সংগৃহীত শহীদ বুদ্ধিজীবীদের মধ্যে অনেকেরই বিস্তারিত তথ্য জোগাড় করা সম্ভব হয়নি। কোষগ্রন্থের নাম-ঠিকানা ধরে খোঁজখবর নিয়ে শহীদ বুদ্ধিজীবীদের বেশ কয়েকজনের নিকটাত্মীয়ের লেখা নিয়ে ১৯৮৮ সালে বাংলা একাডেমি প্রকাশ করে ‘স্মৃতি-৭১’ গ্রন্থ।

গ্রন্থটি প্রকাশিত হওয়ার পর ব্যাপক সাড়া জাগায় এবং কোষগ্রন্থে প্রকাশিত তালিকার বাইরে অনেক শহীদ বুদ্ধিজীবীর আত্মীয়স্বজন তাদের তথ্য নিয়ে বাংলা একাডেমির সঙ্গে যোগাযোগ করেন। এ পর্যায়ে এসে কোষগ্রন্থের তালিকাসহ মোট প্রায় ৩২৫ জনের মতো শহীদ বুদ্ধিজীবীর নাম বাংলা একাডেমির হাতে আসে। পরে একের পর এক ‘স্মৃতি-৭১’ প্রকাশিত হতে থাকে। এ গ্রন্থের ১০ম খ- প্রকাশিত হয় ৪ ডিসেম্বর ১৯৯৭ সাল পর্যন্ত। ১০ম খ-ে স্থান পেয়েছে ১২ জন শহীদ বুদ্ধিজীবীর নিকটাত্মীয়ের স্মৃতিকথা। এর বাইরে বাংলা একাডেমি আর কোনো তালিকা সংগ্রহ বা প্রকাশ করতে পারেনি।